Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:২৩ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

খালেদা জিয়া ও মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম
খালেদা জিয়া ও মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম

‘খেলতে চাইলে সোজা পথে আসুন’- নাসিম

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে হত্যা, নৈরাজ্য ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বন্ধের আহবান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বেগম জিয়া এ সব ষড়যন্ত্রের খেলা বন্ধু করুন। খেলতে চাইলে সোজা পথে আসুন। সোজাপথে খেলার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে তো সফল হতে পারছেন না। তাই ২০১৯ সালের নির্বাচনের মাঠে খেলার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন।

নাসিম আজ বৃহষ্পতিবার বিকেলে রাজধানীর বিএমএ মিলনায়তনে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৫তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

স্বাচিপের সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইসবাল আর্সনালের সভাপতিত্বে সভায় সাবেক সংসদ সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদিউজ্জমান ভূঁইয়া ডাবলু, বিএমএ সভাপতি অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান, স্বাচিপের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. আব্দুল আজিজ, সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়–য়া প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, খালেদা জিয়া সব সময়ে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। হরতাল, অবরোধ, মানুষ হত্যা, নৈরাজ্যসহ তার সকল ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হবার পর তিনি ইসরাইয়ের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সাথে হাত মিলিয়েছিলেন। সেটাতেও তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। তাই বেগম জিয়াকে বলি ষড়যন্ত্রের পথ পরিহার করে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলেই সকল হত্যাকান্ডে বিচার হবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হত্যার ঘটনায় কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তনু হত্যার বিচারও হবে। তনু হত্যার ঘটনার তদন্ত শেষ পর্যায়ে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার এবং শাস্তি হবে।

মোসাদের সঙ্গে বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীর বৈঠকের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিদেশে বসে মোসাদের কুখ্যাত গোয়েন্দা বাহিনীর সঙ্গে নির্বাচিত সরকারকে উৎখাতের জন্য বৈঠক করেছেন। এতে সমগ্র বাংলাদেশের মানুষ বিস্মিত হয়েছে, মর্মাহত হয়েছে। ইসরায়েল লক্ষ লক্ষ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে এবং এখনো করে যাচ্ছে। সেই ইসরায়েল আজকে দুনিয়ায় একটি জঘন্যতম সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। বিএনপি সরকার উৎখাতের জন্য তাদের সাথে হাত মিলিয়েছে। এটা অত্যন্ত লজ্জার।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ অনেক সময়ে আমাদেরকে গণতন্ত্রের বিষয়ে পরামর্শ দেন। কিন্তু তার দলের সংসদ সদস্য যে কাজটি করেছে এখন তিনি কথা বলেন না। জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান আছেন, তিনি এখন নিরীহ হয়ে গেছেন। কোন কথা বলছেন না। এটা কোন ধরনের রাজনীতি। এই ধরনের ডাবল স্ট্যানবাজি রাজনীতি গ্রহণ যোগ্য হতে পারে না।