Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৪৬ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২২শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

খালেদা বেশ অসুস্থ

গুলশানের নিজ রাজনৈতিক কার্যালয়ে অবরুদ্ধ অবস্থায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা খালেদা জিয়া। গতকাল সকাল থেকে দু’বার বমি করেছেন তিনি। দিনভর ছিল বমি বমি ভাব। চোখ ও নাক দিয়ে ঝরছে পানি। মাথা ব্যথা ও  জ্বালা-পোড়া করছে শরীর। শ্বাসকষ্ট ও ঘন ঘন কাশি হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে শারীরিক সুস্থতা কামনা করে দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া। সোমবার বিকালে তার গাড়ি লক্ষ্য করে পুলিশের ছোড়া পিপার স্প্রেতে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন তার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেল। খালেদা জিয়া অসুস্থ হয়ে পড়ার খবরে সারা দেশে বিএনপি নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার কারণে তার শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন করেন প্রেস সচিব। তিনি বলেন, ৫ই জানুয়ারি নিরাপত্তার নামে ‘অবরুদ্ধ’ খালেদা জিয়ার গাড়ি লক্ষ্য করে পুলিশ ভয়ঙ্কর পিপার স্প্রে করেছিল। এ ঘটনা সারা দেশের মানুষ অবলোকন করেছে। এরপর থেকেই দেশের নানা প্রান্তে থাকা বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকরা খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে আছেন। এরই প্রেক্ষিতে খালেদা জিয়ার নির্দেশক্রমে দেশবাসীকে জানাচ্ছি, তার শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভাল নেই। মারুফ কামাল বলেন, সকাল থেকে দুইবার বমি করেছেন খালেদা জিয়া। এছাড়া, সারাদিন তার বমি বমি ভাব অব্যাহত ছিল। ব্যক্তিগত চিকিৎসক মামুনুর রহমান মামুনসহ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শক্রমে বিএনপি চেয়ারপারসনকে অক্সিজেন ও নেবুলাইজার দেয়া হচ্ছে। দুইজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তার চিকিৎসা করছেন। খালেদা জিয়ার চোখ এবং নাক দিয়ে পানি ঝরছে। তার শরীর জ্বালা-পোড়া করছে। মারুফ কামাল বলেন, এর আগে শিক্ষকদের ওপর এই পিপার স্প্রে করা হয়েছিল। কয়েকজন আহতসহ একজন শিক্ষক পিপার স্প্রের যন্ত্রণায় নিহতও হয়েছিলেন। এর প্রেক্ষিতে এই স্প্রে ব্যবহার না করার জন্য হাইকোর্টের নির্দেশও আছে। হাইকোর্টের এ নির্দেশ অমান্য করে সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ও দেশের বৃহৎ একটি রাজনৈতিক দলের চেয়ারপারসনকে লক্ষ্য করে পিপার স্প্রে করা হয়েছে। আমরা এর নিন্দা জানাচ্ছি। একইসঙ্গে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতির জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করছি। রাতে গুলশানের অবরুদ্ধ কার্যালয়ের ভেতরে যে ক’জন সাংবাদিক রয়েছেন, তারাই এ সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন। বাইরে থেকে কোন সাংবাদিককে পুলিশ প্রবেশ করতে দেয়নি।

এদিকে অবরুদ্ধ অবস্থায় নিজের রাজনৈতিক কার্যালয়ে টানা তিনদিন পার করলেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা খালেদা জিয়া। ৫ই জানুয়ারির সমাবেশকে কেন্দ্র করে ৩রা জানুয়ারি রাত থেকেই নিজের কার্যালয়ে তাকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পূর্বঘোষিত সমাবেশে অংশ নিতে ৫ই জানুয়ারি বিকালে কার্যালয় থেকে বেরুনোর চেষ্টা করলেও বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও গেটের বাইরে বালু, পাথর, ইট ও মাটি ভর্তি ট্রাকের অবস্থান এবং বাইরে থেকে গেটে তালাবদ্ধ থাকায় বের হতে পারেননি তিনি। এমনকি গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে কথা বলার সময় খালেদা জিয়ার গাড়ি লক্ষ্য করে ছোড়া হয় পিপার স্প্রে। তবে ৫ই জানুয়ারি সন্ধ্যার পর গেটের সামনে থেকে ট্রাক সরিয়ে নেয়া হলেও এখনও ঝুলছে তালা। গেটের দুদিকে ৫০ মিটার দূরে রাস্তায় আড়াআড়ি করে জলকামান রেখে অবরোধ বহাল রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। গুলশানে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে গতকালও দিনভর ছিল পুলিশের কড়া পাহারা এবং গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যদের ব্যাপক তৎপরতা। গুলশান-২ এ খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের সামনের রাস্তাটিতে যানচলাচল বন্ধ রাখার পাশাপাশি চারদিকে লোকজনের চলাফেরায় আরোপ রয়েছে কড়াকড়ি। সকালে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ফের জোরদার করা হয়।