ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:৪১ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

খালেদা জিয়া উন্মাদ হয়ে গেছেন: প্রধানমন্ত্রী

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘খালেদা জিয়া উন্মাদ হয়ে গেছেন, তিনি হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছেন। ফলে শিশুদের মারতেও দ্বিধা করবে না। বিএনপি নেত্রীর ভুলের খেসারত নিজে না দিয়ে, তার ভুলের মাশুল দিতে হচ্ছে, এদেশের সাধারণ মানুষকে।

প্রধানমন্ত্রী আজ সংসদে তাঁর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য আব্দুল মতিন খসরুর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে আরো বলেন, ২০১৩ সালে নির্বাচনের আগে বিএনপিকে নির্বাচনে আনার অনেক চেষ্টা করা হলেও তারা নির্বাচনে আসেনি। বরং নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণা দিয়ে দেশে এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করেন। নির্বাচনে না আসা ছিল তাদের রাজনৈতিক ভুল সিদ্ধান্ত। তাদের ভুলের খেসারত কেন দেশের নিরীহ সাধারণ মানুষ দেবে?
তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা যখন লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করবে, যখন এসএসসি পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষার হলে বসবে, ঠিক এ সময়ে বিএনপি নেত্রী হরতাল-অবরোধ দিয়ে বসলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, বেগম খালেদা জিয়া একধরনের মানসিক বিকৃতির মধ্য দিয়ে চলছেন, তাকে কোনভাবেই বিশ্বাস করা যায় না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি নিজে শিক্ষামন্ত্রীকে ফোন করে পরীক্ষা স্থগিত করতে বলি। যদিও আমি জানি পরীক্ষা পেছালে ছাত্র-ছাত্রীদের মনে কষ্ট হবে। তারপরেও আমি সিদ্ধান্ত দেই। কারণ আমার কাছে জীবনের মূল্য অনেক বেশী। শিশুদের আমি আগুনে ঠেলে দিতে পারি না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া উন্মাদ হয়ে গেছেন, তিনি হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছেন। ফলে শিশুদের মারতেও দ্বিধা করবে না। এজন্য পরীক্ষা পিছিয়ে তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে।’
তিনি বলেন, এদেশের ছেলেমেয়েরা লেখাপড়া করবে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হবে। এদেশ দারিদ্র্যমুক্ত হবে, উন্নত হবে, বিশ্বে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হবে, এটাই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য।
শেখ হাসনা বলেন, এ জন্য বর্তমান সরকার সকল শিক্ষার্থীর জন্য বিনামূল্যে জানুয়ারির প্রথম তারিখে বই সরবরাহ করেছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি, যারা অন্ধ প্রতিবন্ধী তাদের জন্য বেইল পদ্ধতিতে লেখাপড়ার জন্য বই দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তনে শিক্ষার্থীদের মানসিক প্রস্তুতিতে একটু সমস্যা হতে পারে। তবে আমার বিশ্বাস আছে, আমাদের ছেলেমেয়েরা এ অবস্থা মোকাবেলা করে ভালভাবে পরীক্ষা দিয়ে ভালো ফলাফল করতে পারবে। এদেশের ছেলেমেয়েরা অনেক মেধাবী, নিশ্চয়ই তারা নিজেদের খাপ-খাইয়ে সুন্দরভাবে পরীক্ষা দিতে পারবে।