ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:৫২ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

খালেদা জিয়া অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতা দখল করতে চান

 

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতা দখল করতে চান। তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের অপচেষ্টাকারীদের কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে।
তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া দাবি করেছেন, তারা গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন করছেন। কিন্তু তিনি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না। তিনি অবৈধভাবে ক্ষমতায় যেতে চান। তিনি একটি বিশেষ জায়গার দিকে তাকিয়ে আছেন। সেখান থেকে কেউ একজন এসে তাকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে। আমরা সংবিধানে সংশোধনী এনেছি। বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীদের কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, অসাংবিধানিকভাবে ক্ষমতা দখলের পরিণতি প্রত্যেকের জানা আছে। জেনারেল জিয়া, জেনারেল এরশাদ, ফখরুদ্দিন ও মঈনউদ্দিন পরিণতি ভোগ করেছেন। তাই আমি বিশ্বাস করি, এখন আর কেউ এই আগুনের দিকে পা বাড়াতে আগ্রহী হবে না।
অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আজ বিকেলে রাজধানীর ফার্মগেটে বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন।
এতে আরো বক্তৃতা করেন আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট রাহাত খান, আওয়ামী লীগ সভাপতিম-লী সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও এডভোকেট সাহারা খাতুন, দলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল আলম হানিফ ও ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন ও কৃষিবিদ আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ আজিজ ও সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম এবং আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম আমিন।
আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ও উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অসীম কুমার উকিল।
আলোচনা শুরুতেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, চার জাতীয় নেতা, মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।