ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:১১ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

ফের সাক্ষ্যগ্রহণ ৭ জানুয়ারি

দুর্নীতি মামলায় বকশিবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ আদালতে হাজিরা দিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদার জিয়া। তবে এদিন কোনো সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি। আসামি পক্ষের সময়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ৭ জানুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

বুধবার দুপুরে খালেদা জিয়া আদালতে হাজিরা দেন। তবে এদিন কোনো সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি।

নতুন বিচারক আবু আহমেদ জমাদ্দার তার নিজের পরিচিতিমূলক ভূমিকা বক্তব্য দেন। পরে আসামি ও দুদকের পক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য শোনেন।

এদিন দুপুর ১২টা ২৬ মিনিটে আদালতে হাজির হন খালেদা জিয়া। দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে আসামি পক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন মামলা প্রসঙ্গে বক্তব্য শুরু করেন।

তখন বিচারক বলেন, ‘আজকে যার বিচার করা হচ্ছে তিনি এদেশের তিন তিনবার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তাকে এদেশের সবাই চেনে, আমিও চিনি। তার বিচার যেন ন্যায় ও সততার সঙ্গে হয় তা আমি দেখব।’

তিনি বলেন, ‘আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। কারো পক্ষে বা বিপক্ষে কাজ করতে পারি না। সবার ন্যায় বিচার করার চেষ্টা করব।’

এর পর তিনি দুদকের আইনজীবী মোশারফ হোসেন কাজলের বক্তব্য শুনতে চান। কাজল বলেন, ‘ আমি সাক্ষী নিয়ে এসেছি। সাক্ষ্য গ্রহণ করতে পারেন।’

তার কথা শেষ হলে মাহবুব হোসেন আবার বক্তব্য পেশ করেন।

মাহবুব হোসেন আদালতকে বলেন, ‘আমাদের আরো সময়ের প্রয়োজন।’

বিচারক তার আর্জি মঞ্জুর করে আগামী ৭ জানুয়ারি মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেন।

মামলার কার্যক্রম শেষ হলে বেলা ১টা ৫ মিনিটে খালেদা জিয়া এজলাস থেকে বেরিয়ে যান।

এর আগে বেলা ১১টা ২০ মিনিটে আদালত বসলেও খালেদা জিয়া না পৌঁছানোর কারণে  কিছু সময়ের জন্য আদালত মুলতবি করা হয়। পরে খালেদা জিয়া পৌঁছানোর পর মামলার কার্যক্রম আবার শুরু হয়।

এর আগে গত ১৭ ডিসেম্বর এ মামলার পরবর্তী শুনানির তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ধার্য করেন আদালত।

এ মামলার বিচারকের পরিবর্তন চেয়ে বেগম খালেদার করা এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক বাসুদেব রায়ের পরিবর্তে নতুন বিচারক নিয়োগ দেয়া হয় আবু আহমেদ মজুমদারকে।

১৮ ডিসেম্বর আইন মন্ত্রণালয় এ বদলির আদেশ জারি করেন। প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন বিচারক পরিবর্তন সংক্রান্ত আইন মন্ত্রণালয়ের পাঠানো প্রস্তাব অনুমোদনও করেছেন।

নতুন নিয়োগ পাওয়া বিচারক আবু আহমেদ মজুমদার বুধবার সকালে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিচার কাজ পরিচালনা করেন।