Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:৪২ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

‘সময় থাকতে গণদাবি মেনে পদত্যাগ করুন’

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

অবৈধ সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই। শাসকশ্রেণীর নির্মম পতন অবশ্যম্ভাবী। অবৈধ সরকারের ক্ষমতার সূর্য অস্তমিতপ্রায়। নিষ্ঠুর, নির্মম কায়দায় দমন-পীড়ন অব্যাহত রেখে শাসকশ্রেণী নিজেদের পতন তরান্বিত করছে। সময় থাকতে গণদাবি মেনে নিয়ে পদত্যাগ করুন। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ সব কথা বলেছেন।
বিবৃতিতে আরো বলা হয়, চলমান অবরোধ কর্মসূচি অব্যাহত রাখার পাশাপাশি আগামীকাল সারা দেশে শান্তি বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। সরকার গণদাবি মেনে নেয়ার ঘোষণা না দিয়ে আগামী ১৫ই ফেব্রুয়ারি রোববার থেকে অবরোধের সঙ্গে সর্বাত্মক হরতালসহ আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারি দিয়েছে দলটি। নির্দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন আয়োজন ও বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবি এবং দেশব্যাপী ক্রসফায়ারের মাধ্যমে নেতাকর্মীদের হত্যা, গুলি করে পঙ্গু ও আহত করা ও গণগ্রেপ্তারের প্রতিবাদে ১৪ই ফেব্রুয়ারি শনিবার দেশের সব থানা, উপজেলা, পৌরসভা ও জেলা সদর এবং সব মহানগরের প্রতি ওয়ার্ডে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে সরকার গণদাবি মেনে নেয়ার ঘোষণা না দিলে রোববার থেকে একই দাবিতে চলমান অবরোধের সঙ্গে সঙ্গে সর্বাত্মক হরতালসহ আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, খালেদা জিয়ার এবারের সংগ্রাম দেশ রক্ষার সংগ্রাম। স্বৈরাচারী একনায়কতন্ত্র থেকে দেশের মানুষকে রক্ষার সংগ্রাম। অবরুদ্ধ গণতন্ত্রকে মুক্ত করার সংগ্রাম। ভোটের অধিকার, মৌলিক মানবাধিকার রক্ষার  সংগ্রাম। জনগণের ন্যায্য অধিকার আদায়ের আন্দোলনে খালেদা জিয়া যেকোন ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত রয়েছেন। দেশের মুক্তিকামী জনসাধারণ দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে নিরন্তর লড়াই সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। অবিরাম সংগ্রামের মধ্য দিয়ে এই অবৈধ সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত গণতন্ত্র মুক্তি আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। সালাহউদ্দিন বলেন, বুধবার জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী ঔদ্ধত্য ভঙ্গিতে ঘোষণা দিয়েছেন- ‘প্রয়োজনে বিএনপিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হবে।’ সরকার জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার ঘোষণা ইতিপূর্বে অনেকবার দিয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রী-নেতা এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্তাব্যক্তিরা প্রধানমন্ত্রীর সুরে সুর মিলিয়ে আর ঔদ্ধত্য, অসংযত ও লাগামহীন আচরণে লিপ্ত। এ জাতীয় বাক্যবাণ জোয়ারের লক্ষণ নয়, ক্ষমতার ভাটার টান। গলার জোরে ক্ষমতায় টিকে থাকার নিষ্ফল ব্যাকুলতামাত্র। জনগণ সেটা বোঝে। সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পিতা সব দলকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেও ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেননি, তিনিও পারবেন না। বিবৃতিতে বলা হয়, নৈতিক, সাংবিধানিক, গণতান্ত্রিক, রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিকভাবে অগ্রহণযোগ্য, অন্যায্য ও অবৈধ একটি ভুয়া নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সরকার বর্গী শাসকদের কায়দায় দেশ শাসন করছে। যেখানে নিরন্তর লঙ্ঘিত হচ্ছে নাগরিকদের সাংবিধানিক ও মানবিক অধিকার। প্রধানমন্ত্রী ‘টক শো’ ওয়ালাদের দেখে নেয়ার হুমকি দিয়েছেন। ইতিমধ্যে অনেক সংবাদপত্র ও টিভি চ্যানেল বন্ধ করে সেসব মিডিয়া মালিকদের গ্রেপ্তার করেও তিনি চিন্তামুক্ত হতে পারেননি। বাকশালী কায়দায় সব সংবাদপত্র ও মিডিয়া বন্ধ করে দিয়ে তার পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করেও তিনি তৃপ্ত হতে পারবেন বলে মনে হয় না। বিবৃতিতে বলা হয়, আওয়ামী লীগ প্রতিনিয়ত বিএনপিকে জঙ্গি ও সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে আখ্যায়িত করার বিরামহীন অপচেষ্টা ও অপপ্রচার চালিয়েই যাচ্ছে। সেই ষড়যন্ত্রেরই অংশ হিসেবে প্রতিদিন সুপরিকল্পিতভাবে দলীয় দুর্বৃত্তদের দিয়ে সহিংসতা ও পেট্রলবোমার নাশকতামূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করছে। বিরোধী দলের ওপর তার দায় চাপিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মহলের সহানুভূতি আদায়ের নিষ্ফল প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বিশিষ্ট কূটনীতিবিদ রিয়াজ রহমানের ওপর বর্বর হামলা ও হত্যা প্রচেষ্টার দায়ভারও বিএনপি’র ওপর চাপানোর চেষ্টা করা হয়েছে। আজ পর্যন্ত এই মামলায় তদন্তের কোন অগ্রগতি নেই। একই কায়দায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক রাষ্ট্রদূত সাবিহউদ্দিন আহমেদের ওপরও ন্যক্কারজনক হামলা ও তার গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। বুধবার চেয়ারপারসনের আরেক উপদেষ্টা ও এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আবদুল আউয়াল মিন্টুর ফেনীর বাসভবনে অগ্নিসংযোগ ও বোমা নিক্ষেপ করেছে। আমরা এ জাতীয় সব ঘটনার প্রতি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এ ঘটনাগুলোর তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও বিচারের দাবি জানাচ্ছি। তিনি বলেন, অবৈধ সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই। শাসকশ্রেণীর নির্মম পতন অবশ্যম্ভাবী। অবৈধ সরকারের ক্ষমতার সূর্য অস্তমিতপ্রায়। নিষ্ঠুর, নির্মম কায়দায় দমন-পীড়ন অব্যাহত রেখে শাসকশ্রেণী নিজেদের পতন তরান্বিত করছে। তিনি সরকারের উদ্দেশে আহ্বান জানিয়ে বলেন, সময় থাকতে গণদাবি মেনে নিয়ে পদত্যাগ করুন। অন্যথায় জনতার রোষানল থেকে কেউ আপনাদের রক্ষা করতে পারবে না। সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, চলমান অবরোধ-হরতাল কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে পুলিশের তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীসহ দুর্বৃত্তদের কর্তৃক পেট্রলবোমা নিক্ষেপে যে সমস্ত নিরীহ মানুষ নিহত হয়েছেন, খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে তাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং আহতদের সুস্থতা কামনা করছি। গণআন্দোলনে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেপ্তারকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি। পাশাপাশি অবৈধ সরকারের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করার জন্য দেশকে সন্ত্রাসের ভয়াল জনপদে পরিণত না করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানাই।