Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১০:২৬ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

কেউ আওয়ামী লীগের ক্ষতি করতে পারবে না: শেখ হাসিনা

pm2-2-16-1প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিপুল সংখ্যক ত্যাগী নেতা তৈরী করেছে। তাদের আত্মত্যাগের জন্য কেউ দলের ক্ষতি করতে পারবে না।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অনেক ত্যাগী ও অঙ্গীকারবদ্ধ নেতা তৈরি করেছে। সে কারণেই, দেশের সবচেয়ে পুরাতন এই রাজনৈতিক দলের ওপর বারবার হামলা করা হয়েছে। কেউ এ দলের ক্ষতি করতে পারেনি কারণ, দলের নেতারা দলীয় আদর্শ ও নীতিতে বিশ্বাসী এবং তারা অর্থ-সম্পদ কুক্ষিগত করার চেষ্টা করেনি।
প্রধানমন্ত্রী এ প্রসঙ্গে বলেন, দেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রাখা এবং গণতন্ত্র ও স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে ভূমিকা রাখার জন্য দলের এ সব ত্যাগী নেতার নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিকেলে এখানে বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে (আইইবি) আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন।
ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নূরুল ইসলামের স্মরণে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এই সভার আয়োজন করা হয়।
সভায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এবং জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাধারণ সম্পাদক ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক এবং খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, যুগ্ম-সম্পাদক হাজী মোহাম্মদ সেলিম এমপি, ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এমপি, এ কে এম রহমতউল্লাহ এমপি এবং প্রয়াত নেতা এম এ আজিজের ছেলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ওমর বিন আজিজ এবং ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভা পরিচালনা করেন প্রচার সম্পাদক আব্দুল হক সবুজ।
এর আগে দলের এই দুই নেতার স্মরণে শ্রদ্ধা জানাতে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

দেশ, জনগণ ও দলের জন্য আত্মত্যাগ করায় দলের নিবেদিত নেতাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি দলের নিবেদিতপ্রাণ নেতাদের কাছ থেকে শিক্ষা লাভ করে সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করার জন্য ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
শেখ হাসিনা বলেন, আমি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বলতে চাই যে, তারা দেশ, জনগণ ও দলের জন্য কিভাবে আত্মত্যাগ করেছেন তা থেকে আপনারা শিক্ষা গ্রহন করুন। তাদের কাছ থেকে সকলে শিক্ষা গ্রহণ করলে দল আরো এগিয়ে যাবে। তাহলে, এসব নিবেদিতপ্রাণ নেতার আত্মা শান্তি পাবে।
আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে দলের প্রবীণ নেতাদের ভূমিকার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৮১ সালে নির্বাসন থেকে দেশে ফিরে আসার পর তারা তাকে অনেক ¯স্নেহ-মমতা দিয়েছেন।
তিনি বলেন, দেশে ফিরে আসার পর আমি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতার বাড়িতে গিয়েছি এবং তাদের কাছ থেকে অনেক স্নেহ -মমতা পেয়েছি। সবকিছু হারানোর পর আমি ১৯৮১ সালে দেশে ফিরেছিলাম। সত্যি বলতে কি তখন দলের প্রবীণ নেতারা আমাকে অনেক স্নেহ-মমতা দিয়েছেন।
তিনি বলেন, সেই সময় তার রাজনৈতিক জীবন সহজ ছিল না। একদিকে তখন তাকে তৎকালীন সরকারের নিপীড়ন সহ্য এবং অন্যদিকে দলের অভ্যন্তরে অনেক সমস্যা মোকাবেলা করতে হয়েছে। তবে, দলের নেতাকর্মী যারা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ছিলেন তারা আমার সঙ্গেও ছিলেন। তাদের কাছ থেকে আমি সব ধরনের সহযোগিতা পেয়েছি। তাই, দল এখন এমন একটি পর্যায়ে পৌঁছেছে।