ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৫৪ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ট্রাইব্যুনাল
ট্রাইব্যুনাল

‘কাসেম আলীর রিভিউ খারিজের রায় ট্রাইব্যুনালে’

জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ডের রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে আজ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের দেয়া রায় প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের আপিল বিভাগ বেঞ্চ আজ সকালে মীর কাসেমের রিভিউ আবেদন খারিজ করে এ আদেশ দেন।

২৯ পৃষ্ঠার প্রকাশিত এ রায়ের কপি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করা হয়েছে। এরপর ট্রাইব্যুনাল এ রায়ের অনুলিপি কারা কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে পৌঁছে দেবে। বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন- বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান ।

এর আগে সকালে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে দেয় আপিল বিভাগ। ফলে তার মৃত্যুদন্ডের রায় বহাল রয়েছে।

গত ২৮ আগস্ট আসামী ও রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি শেষে রিভিউ আবেদনের ওপর আজ আদেশ দেয়ার দিন ধার্য করেছিল। গত ২৪ আগস্ট আসামীপক্ষে আনা সময় আবেদন নাকচ করে দিয়ে মীর কাসেম আলীর আইনজীবীকে ওই দিন শুনানি শুরুর নির্দেশ দেয় প্রধান বিচারপতি। এরপর গত ২৮ আগস্ট বিষয়টির ওপর মীর কাসেমের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন দ্বিতীয় দিনের মতো শুনানি করেন। আসামীপক্ষের শুনানির বিপরীতে যুক্তি পেশ করেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

যে অভিযোগে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ডাদেশ হয়েছে তা সাক্ষ্য দ্বারা প্রমানিত হয়নি দাবি করে রায় রিভিউ’র আবেদন পেশ করেন আসামী পক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। অপরদিকে এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আসামী মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ডের রায় বহাল রাখার পক্ষে যুক্তি পেশ করেন। মুক্তিযুদ্ধকালে আল-বদর নেতা মীর কাসেম আলী চট্রগ্রামে টর্চার সেল ডালিম হোটেলের মূল হোতা ছিলেন উল্লেখ করে মুক্তিযোদ্ধা কিশোর জসিম হত্যায় এ আসামীর সম্পৃক্ততার বিষয়ে দেয়া সাক্ষিদের সাক্ষ্য তুলে ধরেন। এটর্নি জেনারেল আসামীপক্ষে আনা রিভিউ আবেদন খারিজ করে রায় বহাল রাখতে আর্জি পেশ করেছিলেন।

আজ রিভিউ আদেশ পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় এটর্নি জেনারেল সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, এ রায় যুগান্তকারী। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি সেনাদের সহযোগিতায় ছাত্রসংঘের বাছাই করা সদস্যদের নিয়ে গঠিত সশস্ত্র আলবদর বাহিনীর চট্রগ্রাম অঞ্চলের কমান্ডার হিসেবে মীর কাসেম আলী মানবতাবিরোধী অপরাধ ঘটান, তা ট্রাইব্যুনালের রায়ে প্রমাণিত হয়। আপিলের রায় ও এ রায় রিভিউ আবেদনেও তা প্রমাণিত হয়েছে বলে জানান এটর্নি জেনারেল।

গত ৮ মার্চ মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ড বহাল রেখে সংক্ষিপ্ত রায় রায় ঘোষণা করেছিলো আপিল বিভাগ। গত ৬ জুন পূর্নাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। এর আগে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর মীর কাশেম আলীকে মৃত্যুদন্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনাল।

আপিলের রায়ে বলা হয়, আসামিপক্ষে আনা আপিল আংশিক মঞ্জুর করা হয়েছে। এ মামলায় প্রসিকিউশন আনীত অভিযোগের মধ্যে ৪, ৬ ও ১২ নং অভিযোগ থেকে মীর কাশেম আলীকে খালাস এবং ২, ৩, ৭, ৯, ১০, ১১ ও ১৪ নম্বর অভিযোগে মীর কাসেম আলীকে ট্রাইব্যুনালে দেয়া দন্ড বহাল রাখে আপিল বিভাগ। একটি অভিযোগে তার মৃত্যুদন্ড বহাল এবং অপর ছয় অভিযোগে মোট ৫৮ বছরের কারাদন্ডের রায় বহাল রাখে আপিল বিভাগ।

আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর মীর কাশেম আলীকে মৃত্যুদন্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনাল। মামলায় মীর কাসেমের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ১৪টি অভিযোগ আনা হয়। ট্রাইব্যুনালের রায়ে বলা হয়, প্রসিকিউশন আনীত ১৪টি অভিযোগের মধ্যে ২, ৩, ৪, ৬, ৭, ৯, ১০, ১১, ১২ ও ১৪ নম্বর অভিযোগে মীর কাসেম আলী দোষী প্রমাণিত হয়েছে। তবে ১, ৫, ৮ ও ১৩ নম্বর অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে এসব অভিযোগ থেকে ট্রাইব্যুনালের রায়ে তাকে খালাস (অব্যাহতি) দেয়া হয়। প্রমাণিত অভিযোগগুলোর মধ্যে ২ নম্বর অভিযোগে তাকে ২০ বছরের কারাদন্ড দেয়া। ৩, ৪, ৬, ৭, ৯ ও ১০ নম্বর অভিযোগে তাকে ৭ বছর করে মোট ৪২ বছর কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ১৪ নম্বর অভিযোগ ১০ বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। এই ৮টি অভিযোগে তাকে সর্বমোট ৭২ বছর কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। ১১ ও ১২ নম্বর অভিযোগে মীর কাসেম আলীকে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়েছে। ১১ নম্বর অভিযোগে রয়েছে কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিমসহ ছয়জনকে আটক, নির্যাতন ও হত্যার অভিযোগ। এ অভিযোগে বিচারকরা সর্বসম্মতিক্রমে মীর কাসেমকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেয়। ১২ নম্বর অভিযোগে রয়েছে রঞ্জিত দাস ও টুন্টু সেনকে নির্যাতন ও হত্যার অভিযোগ। ১১ ও ১২ নং অভিযোগ ছাড়া বাকি ১২টি অভিযোগই অপহরণের পর আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ মীর কাসেমের বিরুদ্ধে।

যে অভিযোগে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ড আপিলেও বহাল রাখা হয়, অভিযোগ ১১: মুক্তিযুদ্ধকালে ঈদুল ফিতরের পরে একদিন মীর কাসেমের পরিকল্পনা ও নেতৃত্বে আলবদর বাহিনীর সদস্যরা চট্রগ্রাম শহর থেকে মুক্তিযোদ্ধা জসিমকে অপহরণ করে শহরের আন্দরকিল্লার ডালিম হোটেলে নিয়ে যায়। তাকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত সেখানে আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনের ফলে জসিমের মৃত্যুবরণ করলে আরো পাঁচজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির লাশসহ তার মৃতদেহ কর্ণফুলী নদীতে ফেলে দেয়া হয়।

এ মামলার শুনানিতে প্রসিকিউশন মীর কাসেমকে আখ্যায়িত করেছে পাকিস্তানের খান সেনাদের সঙ্গে মানবতাবিরোধী অপরাধে লিপ্ত হওয়া ‘বাঙালি খান’ হিসেবে, যিনি সে সময় জামায়াতের তখনকার ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রসংঘের পূর্ব পাকিস্তান শাখার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাক সেনাদের সহযোগিতায় ছাত্রসংঘের বাছাই করা সদস্যদের নিয়ে গঠিত সশস্ত্র আল বদর বাহিনীর চট্রগ্রাম অঞ্চলের কমান্ডার ছিলেন মীর কাসেম। কমান্ডার হিসেবে মীর কাসেম যেসব মানবতাবিরোধী অপরাধ ঘটান, তা এ মামলার রায়ে উল্লেখ রয়েছে। মীর কাসেমের নির্দেশে চট্রগ্রাম টেলিগ্রাফ অফিস সংলগ্ন এলাকায় হিন্দু মালিকানাধীন মহামায়া ভবন দখল করে নাম দেয়া হয়েছিল ডালিম হোটেল। সেখানে গড়ে তোলা হয় আল বদর বাহিনীর চট্রগ্রাম অঞ্চলের ঘাঁটি এবং বন্দিশিবির ও টর্চার সেল।

গত ১৯ জুন আপিল বিভাগের ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করেন মীর কাসেম আলী। ওই আবেদনে ১৪টি আইনগত যুক্তি তুলে ধরে তাকে বেকসুর খালাস দেয়ার আবেদন জানানো হয়।

জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দেয়া মৃত্যুদন্ড বহাল রেখে দেয়া আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায় গত ৬ জুন প্রকাশ করা হয়। মীর কাসেম আলীর আপিল মামলায় রায় প্রদানকারী প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ রায়ে স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে তা প্রকাশিত হয়। এটি আপিলে সপ্তম মামলা ও রিভিউ আবেদনের ষষ্ঠ মামলা যার চুড়ান্ত রায় হলো।

মীর কাসেম আলীর আপিলেও মৃত্যুদন্ডের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর নিয়ম অনুযায়ি রায় মামলাটির বিচারিক আদালত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। এর ভিত্তিতে মীর কাসেম আলীর মৃত্যু পরোয়ানা জারি করে এ পূর্ণাঙ্গ রায় কারাগারসহ সংশ্লিস্ট জায়গায় পাঠায় ট্রাইব্যুনাল। কারাগারে মীর কাসেম আলীকে মৃত্যু পরোয়ানা ও রায় পড়ে শোনানো হয়। রায় অবগত হওয়ার পর রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন জানানোর জন্য ১৫ দিন সময় পায় সংক্ষদ্ধপক্ষ। সে অনুযায়ি মীর কাসেম আলী রিভিউ আবেদন করেছেন।

মানবতাবিরোধী অপরাধের এ মামলায় ট্রাইব্যুনালের আদেশে ২০১২ সালের ১৭ জুন মীর কাশেম আলীকে গ্রেফতার করা হয়। সে থেকে তিনি কারাগারে রয়েছেন।