ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৫৫ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

কাজী জাফরের জানাজা অনুষ্ঠিত

জাতীয় পার্টির (একাংশ) চেয়ারম্যান কাজী জাফর আহমেদের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১১টা ৫ মিনিটে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় তার দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার নামাজ পরিচালনা করেন জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র ইমাম আবু নঈম মোহাম্মদ ইব্রাহিম।
এর আগে শুক্রবার সকাল সোয়া ৮টায় টঙ্গীর মিল গেটে কাজী জাফর আহমেদের প্রথম নামাজে অনুষ্ঠিত হয়। মাওলানা সাইদুর রহমান তার নামাজে জানাজা পড়ান।
বৃহস্পতিবার সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে মারা যান কাজী জাফর আহমেদ। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।
দ্বিতীয় নামাজে জানাজায় উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হান্নান শাহ, জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বিএনপির চেয়ারপাসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা আহমেদ আজম খান, এনডিপির মহাসচিব গোলাম মুর্তোজা ও জাতীয় পার্টির (একাংশ) মহাসচিব হায়দার আলমসহ বিভিন্ন দলের নেতা-কর্মীরা।
জানাজার শুরুতে কাজী জাফরের ছোট ভাই কাজী মামুন পরিবারের পক্ষ থেকে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে সবার কাছে মৃতের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া প্রত্যাশা করেন।
বাদ জুমা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে অনুষ্ঠিত হবে মরুহুমের তৃতীয় নামাজে জানাজা। বিকেলে আরেকটি হবে গুলশান আজাদ মসজিদে। এরপর তাকে নিয়ে যাওয়া হবে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের চিওড়া কাজী বাড়িতে, সেখানে তার দাফন কাজ সম্পন্ন হবে। এরপর তাকে নিয়ে যাওয়া হবে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের চিওড়া কাজী বাড়িতে, সেখানে তার দাফন কাজ সম্পন্ন হবে।
টঙ্গিতে কাজী জাফরের জানাজায় গাজীপুর বিএনপির নেতা ও সাবেক এমপি হাসান উদ্দিন সরকার, গাজীপুর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন কায়সার, জাতীয় পার্টির টঙ্গী থানার সভাপতি বদিউর রহমান, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেনসহ বিভিন্ন দলের স্থানীয় নেতা-কর্মী, শ্রমিক নেতা ও সর্বস্তরের মানুষ তার অংশগ্রহণ করেন।
বিভিন্ন আন্দোলনে শ্রমিকদের সংগঠিত করার ব্যাপারে কাজী জাফরের ব্যাপক ভূমিকা ছিল। ১৯৬৭ সাল থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলা শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ছিলেন। টঙ্গী অঞ্চলের একজন প্রভাবশালী শ্রমিক নেতা ছিলেন তিনি।