ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:২২ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে সম্পর্কের ভাগাভাগি আনা যায় না

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

দুই বাংলার মধ্যে কোনো বিভেদ থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিনি বলেন, কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে সম্পর্কের ভাগাভাগি আনা যায় না। বাংলাদেশকে আমরা ছাড়তে পারি না। তেমনি বাংলাদেশও আমাদের ছাড়তে পারে না। শুক্রবার দুপুরে হোটেল সোনারগাঁওয়ে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন মমতা ব্যানার্জি।
বেলা একটার দিকে হোটেল সোনাগাঁওয়ে আয়োজিত বৈঠকী বাংলায় যোগ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে বাংলাদেশ ও ভারতের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা যোগ দেন।
মমতা বলেন, আমরা আপনাদের কাছে শুনবো কী কী প্রত্যাশা করেন, কোনো বাধা থাকবে না। মনের দরজা খুলে দিতে হবে। সব শুনব এবং আমি হয়তো সব বলতে পারি না, জবাব দেব। আমারও কথা রয়েছে।

তিনি বলেন, আমি বাংলাদেশে আসতে পেরে খুবই খুশি। ভাষা আন্দোলনের এই আবেগের দিনে এসে আমরা আপ্লুত।
বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস উদযাপনের সুযোগ পেয়েছে, এটি বাংলাভাষি হিসেবে আমারদেরও গর্ব, বলেন মমতা ব্যানার্জি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে মমতা বলেন, আমরা গোটা পশ্চিমবঙ্গ পরিবার আনন্দিত। আমাদের এপার বাংলা ওপার বাংলা, দুই বাংলার মধ্যে যতই রাজনৈতিক এবং ভৌগলিক বাউন্ডারি থাকুক, মনের কোনো বাউন্ডারি নেই।
হৃদমাঝারে রাখিব ছেড়ে দেবো না, বাংলাদেশ নিয়ে এমন মনের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের একই সংস্কৃতি, একই খাবার খাই, একই গান গাই।
আমাদের একই রবীন্দ্রনাথ, একই নজরুল, একই লালন, একই ক্ষুদিরাম, একই সুর্যসেন।

এসময় তিনি  জানান,বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই তিস্তা ও সীমান্ত সমস্যার সমাধান করা হবে।

অনুষ্ঠানে নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার বলেন, দুই দেশের মধ্যে কিছু ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল। মমতার এ সফর দুই দেশের মানুষের মধ্যে সেতু তৈরি করবে। ভুল বোঝাবুঝিরও অবসান ঘটবে। তিনি দুই দেশের মধ্যে ভিসা সংক্রান্ত জটিলতা কমানোর আহ্বান জানান।
চলচ্চিত্র পরিচালক নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু দুই দেশের মধ্যে চলচ্চিত্র বিনিময়ের আহ্বান জানান।

বৈঠকী বাংলায় দুই বাংলার সাহিত্য, সংস্কৃতি ও বিনোদন জগতের সমাবেশ হয়। গান, কবিতায় ভরপুর হয়ে ওঠে অনুষ্ঠান। সেখানে গান গেয়েছেন সঙ্গীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ও নচিকেতা।