ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:৪৩ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

নজিবুর রহমান
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান, ফাইল ফটো

‘কর ফাঁকিবাজদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করলাম’

কর ফাঁকিবাজদের খুঁজে বের করতে আজ থেকে মাসব্যাপী অভিযান শুরু করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

বুধবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রাজস্ব ভবন প্রাঙ্গণে রয়েল বেঙ্গল টাইগারের ভাস্কর্ষ স্থাপনের সময় এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেন,‘যারা কর দিচ্ছেন না। শুল্ক ফাঁকি দিচ্ছেন। ভ্যাট অব্যবস্থাপনা করছেন, তাদের বিরুদ্ধে আমরা মাসব্যাপী অভিযান শুরু করলাম।’

তিনি বলেন, আজ বাঘ্র মূর্তি স্থাপনের পর থেকে মাসব্যাপী কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ কার্যক্রম শুরু হলো। সেটা হবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আয়কর, ভ্যাট ও শুল্ক বিভাগের আইনের আওতায় যেসকল জায়গায় আয়কর ও শুল্ক ফাঁকি দেখব, ভ্যাটে অব্যবস্থাপনা দেখবো সেখানেই জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কমিশনারদের নেতৃত্বে যেসব টিম রয়েছে তারা সেখানে কাজ করবেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, মাসব্যাপী আইন প্রয়োগ কার্যক্রমের যে সূচনা হলো-২১ জানুয়ারি এর মূল্যায়ন করা হবে। ২৬ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবসে স্টেকহোল্ডার ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সামনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত মাসব্যাপী এ কার্যক্রমের ফলাফল তুলে ধরবেন।

এনবিআর প্রাঙ্গণে বাঘের ভাস্কর্ষ স্থাপনের পাশাপাশি সেখানে আজ একটি ফুল বাগানের উদ্বোধন করা হয়।

রাজস্ব বোর্ডের চলমান নানাবিধ জনসচেনতামূলক কার্যক্রমের উল্লেখ করে নজিবুর রহমান বলেন, এতদিন মানুষকে বুঝিয়েছি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের দুইটি রুপ। একটি রুপ হচ্ছে ফুলের রুপ। আজ ফুলে শোভিত বাগান উদ্বোধন করা হলো, এটি হচ্ছে রাজস্ব বোর্ডের সেবাধর্মী রুপ বা অবয়ব। যখন সবাই রাজস্ববান্ধব অবস্থান নেয় তখন এনবিআর তাদের ফুল দেয়। কিন্তু যখন এর ব্যতিক্রম হয়, আয়করে ফাঁকি হয়, ভ্যাটে অপব্যবহার হয়, শুল্কে মিথ্যা ঘোষণায় ফাঁকি হয়, মুদ্রা পাচারের মতো ঘটনা ঘটে তখন রাজস্ব বোর্ড তার বাঘ্র মূর্তি ধারণ করে।

তিনি বলেন, ‘আয়কর মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আগাম বার্তা দেওয়া হয়েছিল, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে মেলার পর ঠেলার ব্যবস্থা করা হবে। অর্থাৎ যারা রাজস্ববান্ধব অবস্থানে থাকবেন না তাদের ওপর কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ করা হবে।’

তিনি জানান, এনবিআর এখন থেকে রাজস্ব আহরণের পাশাপাশি রাজস্ব আদায়ও করবে। কেউ যদি রাজস্ব ফাঁকি দেন আইনের আওতায় সেটা আমরা আদায় করবো। কারো কাছে যদি বকেয়া পাওনা থাকে, আইনগত ভাবে কেউ আমাদের কথায় সাড়া না দেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা উল্লেখ করেন তিনি।