ফ্রান্স বৃহস্পতিবার জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় দেশটিতে করোনা মহামারিতে মৃত্যুর সংখ্যা কমে ৮৩ জনে দাঁড়িয়েছে। শীর্ষ একজন ডাক্তার বলেছেন, দেশে লকডাউন শিথিল করা সত্ত্বেও দ্বিতীয় ধাপের সংক্রমণ দেখা যায়নি।

স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এক বিবৃতিতে জানায়, হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে সর্বশেষ মৃত্যুসহ দেশটিতে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ২১৫ জন।

হাসপাতালে বর্তমানে ১ হাজার ৭৪৫ জন রোগী রয়েছে, এদের মধ্যে ৪৯ জন ইনটেনসিভ কেয়ারে রয়েছেন, করোনার পিক সময়ে ইনটেনসিভ কেয়ারে রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল ৭ হাজার। এতে করোনা থেকে মুক্তির আশাবাদ জেগে উঠেছে।

গত ১১ মে ফ্রান্স লকডাউন শিথিল করেছে, কর্মকর্তারা বলেছেন, দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না এই সিদ্ধান্ত যথেষ্ট আগাম হবে।

ফ্রান্সের ইমার্জেন্সি ডক্টরস এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট পেট্রিক পেলুক্স ফ্রান্স ২ টেলিভিশনে শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সংক্রমণ কমলেও লকডাউন শিথিলের কারণে দ্বিতীয়বারে সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে। গাণিতিক মডেলে সংক্রমণ বৃদ্ধির আশংকা দেখা যায়।

তিনি বলেন, মহামারি থেমে গেছে এটি মনে করা ঠিক হবে না, আমাদের সামাজিক দূরত্বের প্রতি গুরুত্ব বজায় রাখতে হবে এং মাস্ক পরা অব্যাহত রাখতে হবে।