Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:১৩ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

কঠিন পরিণতি মোকাবেলার প্রস্তুতি নিন, খালেদাকে-ইনু

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন। আপনাদের সহযোগিতা আমাদেরকে অনুপ্রানিত করবে।

 

জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু মানুষ পোড়ানো বন্ধ না হলে বেগম খালেদা জিয়াকে কঠিন পরিণতি মোকাবেলার প্রস্তুতি নেয়ার আহবান জানিয়েছেন।
খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘মানুষ পোড়ানো বন্ধ করুন, না হলে ভয়াবহ পরিণতি মোকাবেলায় প্রস্তুত থাকুন।’
হাসানুল হক ইনু আজ সোমবার বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ জাসদ প্রধান কার্যালয়ের সামনে জামায়াত-বিএনপি আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা, জ্বালাও-পোড়াও, সহিংসতা ও অন্তর্ঘাতের বিরুদ্ধে জাসদ ঢাকা মহানগর সমন্বয় কমিটি আয়োজিত সমাবেশে এ কথা বলেন।
জাসদ ঢাকা মহানগর সমন্বয়ক মীর হোসেন আকতার-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম, জাসদ’র সাধারণ সম্পাদক শরীফ নুরুল আম্বিয়া, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক এমপি, জাসদ স্থায়ী কমিটির সদস্য শিরিন আক্তার এমপি ,গণতন্ত্রী পার্টির নেতা ড. শাহাদত হোসেন, গণ-আজাদী লীগের আতাউল্লাহ খান। সমাবেশ পরিচালনা করেন, মহানগর জাসদ নেতা নুরুল আখতার।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া পেট্রোল বোমার আগুন দিয়ে পুড়িয়ে শিশু-নারী, শ্রমিক, ছাত্র, পুলিশসহ অগণিত মানুষ হত্যা করেছেন। অনেক মানুষ পোড়া কষ্ট নিয়ে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।
এবার আল্লাহর ওয়াস্তে দিলে রহম আনার আহবান জানিয়ে অবিলম্বে আগুন দিয়ে মানুষ পোড়ানো বন্ধ করার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছি; কিন্তু রেলে নাশকতা করিনি। ঘুমন্ত মানুষকে পেট্রোল বোমা দিয়ে হত্যা করিনি। নারীদের গায়ে হাত দেইনি। উল্টো পাকিস্তানিরাই ’৭১ সালে রাজাকারদের সঙ্গী করে ওই সকল জঘন্য কাজ করেছে।’
জাসদ সভাপতি খালেদা জিয়ার পুত্র হারানোর ব্যথায় সমবেদনা জানিয়ে আরো বলেন, ‘তিনি বেদনা বুকে নিয়েও আবার নতুন করে হরতাল দিয়ে নারী-শিশু ও নিরীহ মানুষ পুড়িয়ে মারার কর্মসূচি দিয়েছেন। সমাবেশে তিনি প্রশ্ন রাখেন, যারা মানুষকে পুড়িয়ে মারে তাদের সাথে কিসের বৈঠক? জঙ্গিবাদ ও যুদ্ধাপরাধীদের সাথে কোনো আপস নেই। এই ইস্যুতে যে কোনো ধরনের আপস-রফা হবে আত্মঘাতী।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, মানবতা বিসর্জন দিয়ে হত্যাকারীদের সাথে বৈঠক কিংবা কোনো রকম আলোচনা হতে পারে না।যারা সংলাপের কথা বলছেন, তাদেরকে আমি বলবো, আগে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সংলাপে বসুন। তাকে (খালেদা জিয়া) মানুষ পোড়ানো বন্ধ করতে বলুন। গণতন্ত্রের পথে থাকলে অবশ্যই আলোচনা হতে পারে কিন্তু মানুষ পোড়ানো খুনির সঙ্গে আলোচনায় বসতে পারি না।’
ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সাথে বেগম জিয়া শিষ্টাচার বহির্ভূত যে কাজ করেছে তাতে সংলাপের পথ আটকে গেছে। সামান্যতম শিষ্টাচার যাদের মাঝে নেই তাদের সাথে আলোচনা মানায় না।
তিনি বলেন, এখন আলোচনা হতে পারে কিংবা সংলাপ হতে পারে দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতি নিয়ে। নির্বাচন নিয়ে নয়। সামনে এসএসসি পরীক্ষার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই পরীক্ষার পূর্বেই অবরোধের নামে মানুষ হত্যা বন্ধ করতে হবে।
রাশেদ খান মেনন বলেন,খালেদা জিয়া পুত্রশোকে শোকাহত। কিন্তু তার ওই মায়েদের কথা মনে করা উচিত, যাদের সন্তানকে পেট্রোল বোমা মেরে পুড়িয়ে মারা হয়েছে, তাদের বেদনার কথা, কষ্টের কথা উপলব্দি করা উচিত।
আওয়ামী লীগের নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘সন্তান হারানোর শোকে শরীর-মন খারাপ থাকতে পারেন, ঘুমেও থাকতে পারেন- দোষের কিছু নয়; কিন্তু প্রধানমন্ত্রী আপনার পাশে গিয়ে হাত বুলিয়ে অথবা দাঁড়িয়ে থেকে সান্ত¦না দিতে পারতেন।
বেগম জিয়ার উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, আপনি সুস্থ হোন, ভালোভাবে সুস্থ হয়ে মানুষের জন্য সুস্থ ধারার রাজনীতি করুন। নির্বাচন নিয়ে ভাববেন না, ২০১৯ সালের আগে বাংলাদেশে কোনো জাতীয় নির্বাচন হবে না। আপনার সন্তানের মরদেহ ঢাকায় আসবে, সকল ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা হবে- এটা নিয়ে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করবেন না। এর ফল ভালো হবে না।