Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:২১ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ওয়ান ব্যাংকের ডিএমডিসহ ১১ কর্মকর্তাকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

ঋণ জালিয়াতির অভিযোগ অনুসন্ধানে ওয়ান ব্যাংক লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) জোহরা বিবিসহ দুই দিনে ১১ কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আনন্দ শিপইয়ার্ডের প্রায় ১৩’শ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির ঘটনায় সোমবার এবং আজ রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

দুদকের উপ-পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী তাদেরকে জিজ্ঞসাবাদ করেছেন।

মঙ্গলবার যাদের জিজ্ঞসাবাদ করা হয়েছে তারা হলেন- ব্যাংকের মতিঝিল শাখার ব্রাঞ্চ ইনচার্জ মুজতাবা এম কাজমী, প্রিন্সিপাল অফিসার খালেদ আল ফেসানী, করপোরেট হেড কোয়ার্টারের এসভিপি ইঞ্জিনিয়ার আসিফ মাহমুদ খান, এসপিও ইঞ্জিনিয়ার মাহবুব হাসান, মার্কেটিং ডিভিশনের অফিসার আবু সাহাদাত মো. সাহেদ ও প্রিন্সিপাল অফিসার মো. আনিসুজ্জামান।

এছাড়া গতকাল যাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল তারা হলেন, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেডের করপোরেট হেড কোয়ার্টারসের ডিএমডি জোহরা বিবি, ভাইস প্রেসিডেন্ট (মার্কেটিং বিভাগ) মো. আবু সালেহ, এসইভিপি এবং হেড অব মার্কেটিং রোজিনা আলিয়া আহমেদ, এসইভিপি মো. আফতাব উদ্দিন খান ও প্রিন্সিপাল অফিসার জামিল হোসেন।

আনন্দ শিপেইয়ার্ডের বিরুদ্ধে জাহাজ রফতানির নামে প্রায় এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ আমলে নিয়ে চলতি বছরের এপ্রিল মাসে অনুসন্ধান শুরু করে দুদক।

অভিযোগের বিষয়ে জানা যায়, জাহাজ রফতানির নামে ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে আনন্দ শিপইয়ার্ড দেশের ১২টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। জাহাজ নির্মাণের পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলেও পর্যাপ্ত জামানত ছাড়া এসব ঋণ দেওয়া হয়েছিল। বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ পরিদর্শনে এ সব জাল-জালিয়াতির তথ্য বেরিয়ে আসে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জানুয়ারি ডিএমডিসহ মোট ১১ কর্মকর্তাকে তলব করে চিঠি দিয়েছিল দুদক।