ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৪৯ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ওয়েব দুনিয়ায় গুগল সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা-গুগলের চেয়ারম্যান এরিক স্মিথ

শীর্ষ মিডিয়া ৫ অক্টোবর ঃ  ওয়েব দুনিয়ায় গুগল সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা বলে দাবি করেছেন গুগলের চেয়ারম্যান এরিক স্মিথ। সম্প্রতি অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুক অ্যাপলকে খোঁচা দিয়ে মন্তব্য করার পরিপ্রেক্ষিতে এ মন্তব্য করেন স্মিথ।     গত মাসে আইক্লাউড থেকে হলিউডের বিভিন্ন তারকার নগ্ন ছবি ফাঁস হওয়ার পর প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা অ্যাপলের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। ওই সময় অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুক অ্যাপলের সিস্টেম হ্যাকের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘অ্যাপলের সিস্টেম যথেষ্ট নিরাপদ।’ তিনি আরও বলেন, ‘গুগলের মতো অনলাইন সার্ভিসগুলো বিনা মূল্যে সেবা দেয়, তাদের ক্ষেত্রে গ্রাহক নয় বরং ব্যবহারকারীরাই পণ্য। কিন্তু অ্যাপলের ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীর প্রাইভেসি বিষয়টি নিয়ে আমরা কোনো ছাড় দিতে রাজি নই।’

টিম কুকের সমালোচনার জবাবে কুম বলেন, ‘অন্যান্য প্রতিষ্ঠান, সরকার ও হ্যাকারদের গ্রাহকদের কাছ থেকে তথ্য সুরক্ষায় কঠোর প্রচেষ্টা চালায় গুগল। এ ছাড়াও ব্যবহারকারীদের কাছে তাদের সেটিংস পরিবর্তন করার, তথ্য কম-বেশি শেয়ার করার সুবিধাও দেওয়া রয়েছে।’

স্মিথ অ্যাপলের প্রধান নির্বাহীকে খোঁচা দিয়ে বলেছেন, ‘গুগলের নীতিমালা সম্পর্কে কেউ হয়তো তাঁকে ঠিকমতো জানায়নি। এটা তাঁর জন্য দুর্ভাগ্যই বটে।’
সম্প্রতি গুগল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পরবর্তী প্রজন্মের গুগল অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে ব্যবহারকারীর ডাটা এনক্রিপ্ট করার বিশেষ সুবিধা থাকবে। এর ফলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষে ব্যক্তিগত তথ্যে নজরদারি করার বিষয়টি কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।
১৮ সেপ্টেম্বর গুগল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পরবর্তী অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণে বাই ডিফল্ট ডাটা এনক্রিপ্ট হবে। এতে স্মার্টফোনে জমা রাখা তথ্যের নিরাপত্তার আরও একটি বাড়তি স্তর যোগ হবে।
গুগল কয়েকটি পণ্যের ক্ষেত্রে বেশ কয়েক বছর ধরেই ডাটা এনক্রিপশন সুবিধা দিয়ে আসছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, খুব কম ব্যবহারকারী ডাটা এনক্রিপশনের পদ্ধতি জানেন। এখন গুগল এমন একটি ফিচারের নকশা করছে, যাতে স্মার্টফোনের তথ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে এনক্রিপ্ট হয়ে যাবে। কেবল যার কাছে স্মার্টফোনের পাসওয়ার্ড থাকবে, সে–ই স্মার্টফোনে রাখা তথ্যে নজরদারি করতে পারবে।
সম্প্রতি আইফোন ব্যবহারকারীদের সুরক্ষার জন্য অ্যাপলও স্বয়ংক্রিয় ডাটা এনক্রিপশন প্রযুক্তি চালু করেছে।
গুগল জানিয়েছে, স্বয়ংক্রিয় এনক্রিপশন প্রযুক্তি চালু করতে দীর্ঘসময় লেগেছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার গোপন নজরদারির খবর ফাঁস হওয়ার পর থেকে মার্কিন প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠানগুলো গ্রাহক সুরক্ষায় নজরদারি ঠেকানোর যে পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে, গুগলের পদক্ষেপ তারই একটি অংশ।
এরিক স্মিথ দাবি করেন, বিভিন্ন সময় তথ্য হ্যাক হওয়ার ঘটনা ঘটলেও গুগলের সিস্টেমে এত বড় দুর্ঘটনা কখনও ঘটেনি।
অবশ্য, স্মিডের কথা শতভাগ ঠিক নয় বলেই প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা বলছেন। গুগলের প্রাইভেসি দেওয়ার ক্ষেত্রে রেকর্ড ভালো নয়। ২০১২ সালে গুগল অ্যাকাউন্টে বিতর্কিত প্রাইভেসি নীতিমালা নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়ে গুগল। অভিযোগ ওঠে, ব্যবহারকারীদের তথ্য সংগ্রহ করে তা বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে বিক্রির পথ সুগম করেছে গুগল। এ ছাড়াও অতীতে প্রাইভেসি নিয়ে গুগলের জরিমানা দেওয়ার রেকর্ডও রয়েছে।
সিএনএকে এরিক স্মিথ জানিয়েছেন, ‘নিরাপত্তা ও এনক্রিপশনের ক্ষেত্রে আমরাই নেতৃত্ব দিয়ে আসছি। অ্যাপল কিংবা অন্যদের তুলনায় আমাদের সিস্টেম অনেক বেশি নিরাপদ ও এনক্রিপটেড। তারা আমাদের ধরার চেষ্টা করছে, যা ভালো একটি বিষয়।’