ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:৫৫ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

“এ বছরেই গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার সম্পন্ন হবে”

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক এমপি চলতি বছরের ডিসেম্বর নাগাদ ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচার সম্পন্ন হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
তিনি সোমবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের উদ্যোগে ২১ আগস্ট বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় শহীদদের স্মরণে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দানকালে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে সে সময়ের বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভাষন দানকালে এ গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। এ হামলায় আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ ২৪ জন শহীদ হন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ পাঁচ শতাধিক নেতা-কর্মী মারাত্মকভাবে আহত হন।
ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন একাত্তর টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মোজাম্মেল বাবু, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী খান পান্না, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান ও সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স প্রমুখ।
আলোচনা সভা পরিচালনা করেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন।
এডভোকেট আনিসুল হক বলেন, বিএনপি নেতৃত্বাধীন চার দলীয় জোট সরকার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলাকে ভিন্নপথে প্রবাহিত করার মধ্য দিয়ে প্রমান হয় তারা এ গ্রেনেড হামলার সাথে জড়িত।
তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় জর্জ মিয়া নাটক, প্রতিবেশী একটি দেশের বিচ্ছিন্নতাবাদী একটি সংগঠনকে হামলার জন্য দায়ী করার চেষ্টা ও এ মামলার আলামত ও তথ্য-উপাত্ত নষ্ট করাও তাদের জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণ করে।
আনিসুল হক মামলার বিচারিক রায়ের দীর্ঘসূত্রিতার বিষয়টি খন্ডন করে বলেন, ‘আমি আইনমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর এ মামলার কার্যক্রম জোরদার করার জন্য সপ্তাহে একদিনের পরিবর্তে দু’দিন বিচারিক কার্যক্রম চলছে।
তিনি এ বিষয়ে বলেন, দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীন। আর বিচারাধীন মামলা নিয়ে কোন মন্তব্য করতে চাই না। নৃশংস এ হামলার নেপথ্য ষড়যন্ত্রকারীদের বিচার করতে গেলে হামলার সাথে যারা সরাসরি জড়িত তাদের বিচার করাও দুরূহ হয়ে পড়বে।
এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, ‘এ বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা এ মামলার বিচার পাব বলে আশা করতে পারি।’
মোজাম্মেল বাবু বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের অংশ। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার জন্যই এ হামলা চালানো হয়েছিল।
তিনি বলেন, এ হামলায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেড সামরিক বাহিনী ছাড়া কোথাও ব্যবহৃত হয় না। এ গ্রেনেড কোথায় থেকে কিভাবে এলো তা ভালোভাবে খতিয়ে দেখা দরকার।