ব্রেকিং নিউজ

রাত ৪:৫৫ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

এবার ক্রিকেটার বিজয় বাড়িওয়ালার ছেলেকে পেটালেন

বাড়ির গোডাউনে তালা মারার প্রতিবাদ করায় জাতীয় দলের ক্রিকেটার এনামুল হক বিজয়ের ব্যাট ও ভাইয়ের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছে বাড়িওয়ালার ছেলে। আহত ওই ছেলের নাম মোতালেব হোসেন বাপ্পী (২৪)।
রোববার রাত ৯টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের আড়–য়াপাড়ার গৌরিশংকর আগরওয়ালা সড়কের হাজী আব্দুল হালিমের চারতলা বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে।
আহত বাপ্পীর পিতা আব্দুল হালিম জানান, দীর্ঘ চার বছর ধরে আমার বাড়ির দ্বিতীয় তলায় ক্রিকেটার এনামুল হক বিজয়ের পিতা জামিল হোসেন লিচু তার পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছে। বাড়ির নিচ তলায় একটি গোডাউন রয়েছে। সেখানে তার দোকানের চাল-ডালসহ কিছু মালামাল রাখা হয়। গতকাল সকালে আমার ছেলে বাপ্পী গোডাউন খুলতে গেলে দেখতে পায় নিজেদের তালার পরিবর্তে অন্যতালা মারা রয়েছে। তখন এ বিষয়ে বিজয়ের পিতা জামিল হোসেন লিচুকে জিজ্ঞাসা করলে দুজনের মধ্যে কিছুটা বাক-বিতন্ডা বাধে। এরপর ঢাকায় থাকা তার ছেলে জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় এনামুল হক বিজয়কে এ বিষয় জামিল হোসেন লিচু জানান, বাড়িওয়ালার ছেলে তাকে অপমান করেছে মর্মে জানায়।
গতকাল সন্ধ্যা ৭টার দিকে গাড়ী নিয়ে বিজয় ও তার তিন বন্ধু কুষ্টিয়ায় এসে তিন তলায় বাড়িওয়ালাকে ডাকে। এ সময় ঘরে থাকা বাপ্পীর মা রাবেয়া খাতুনসহ পরিবারের লোকজন তাদের ভেতরে আসতে বলে। বিজয় বাপ্পী কোথায় আছে জানতে চেয়ে দ্রুত সেখান থেকে নেমে শহরের বড় বাজারস্থ বিছমিল্লাহ ট্রেডার্সে বসা বাপ্পীকে রাত ৯টার দিকে বাড়ির কাছে ডেকে নিয়ে আসে। এর র বাড়ীর নিচ তলায় গেটের ভেতর ঢুকিয়ে বিজয়ের হাতে থাকা বেজ ব্যাট ও তার ভাই সজিবের হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে অতর্কিতভাবে তাকে আঘাত করতে থাকে। প্রাণের ভয়ে বাপ্পী দৌড়ে উপরে তিন তলায় নিজ ঘরে প্রবেশ করলে হামলাকারী বিজয় ও তার তিন সহযোগীসহ ৭জন এলোপাতাড়িভাবে আঘাত করে রক্তাক্ত করে ফেলে তাকে। এক পর্যায়ে বাড়ীর লোকজনের আত্মচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে বিজয় ও তার পিতা-মাতা সকলে তাদের ঘরে তালা মেরে পালিয়ে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় বাপ্পীকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এ খবর সংগ্রহে বাপ্পীদের বাড়ীতে গেলে বাপ্পীর মা রাবেয়া খাতুন ও তার ভাবী জানায়, বাপ্পীকে মেরে যাওয়ার সময় বিজয় উচ্চ চিৎকার করে বলে যায়, বোম মেরে বাড়ী উড়িয়ে দেয়া হবে। বর্তমানে ওই পরিবারটি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এ বিষয়ে ক্রিকেটার এনামুল হক বিজয় ও তার বড় ভাই সজিবের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব কুমার দেবনাথ গণমাধ্যমকে জানান, দুপক্ষ থেকেই অভিযোগ এসেছে। তদন্ত করে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।