ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:৪১ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ফাইল ফটো

এদেশে আল্লাহর রহমত থাকায় ভূমিকম্প হলেও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি: দুর্যোগমন্ত্রী

ভারতের মনিপুরে শক্তিশালী ভূমিকম্পে বাংলাদেশ কেঁপে উঠলেও বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি না হওয়াকে ‘আল্লাহর রহমত’বলছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।
সোমবার ভোরে ৬ দশমিক ৭ মাত্রার এই ভূমিকম্পের পর সকালে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ অত্যন্ত ধর্মভীরু। এদেশে আল্লাহর রহমত আছে। অনেক সময় অনেক গবেষক যে গবেষণা করেন, বাংলাদেশের এরিয়ায় তা সঠিকভাবে ফলেনি। গবেষকরা বলেছেন ৬ দশমিক ৫ হলেই (ভূমিকম্পের মাত্রা) ম্যাসাকার হয়ে যাবে। ৬ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্প হয়ে গেছে। আল্লার রহমতে একটা বিল্ডিংয়েও ফাটল ধরেনি।
ভোরে যে ভূমিকম্পে বাংলাদেশ কেঁপে উঠেছে, তার কেন্দ্র ছিল ঢাকা থেকে ৩৫২ কিলোমিটার পূর্ব উত্তর-পূর্বে ভারত-মিয়ানমার সীমান্তের কাছাকাছি। এর উৎপত্তিস্থল ছিল ভূপৃষ্ঠের ৫৫ কিলোমিটার গভীরে। ভূমিকম্পে পুরান ঢাকার বংশাল এবং যাত্রাবাড়ীর রায়েরবাগে দুটি ভবনে হেলে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। সিলেট নগরীর একটি নির্মাণাধীন মার্কেটের দেয়াল ধসে পাশের ভবনে পড়ে চারজন আহত হয়েছেন।
মন্ত্রী মায়া বলেন, ‘আমি মনে করি, ঢাকার মাটি ভূমিকম্পকে সহনশীল করতে পারে। সাত মাত্রার ভূমিকম্প হলেও ঢাকায় ক্ষতি হবে বলে আমার মনে হয় না, এটা আমার আত্মবিশ্বাস।
এই ভূমিকম্পের সময় আতঙ্কের হুড়োহুড়িতে ঢাকা, রাজশাহী ও লালমনিরহাটে তিনজন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান বলে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।