ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:১৬ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

আসাদুজ্জামান খান কামাল
সাংবাদিক নির্যাতন

এই সাংবাদিক নির্যাতন কি স্বাভাবিক?

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, সাংবাদিক নির্যাতন পুলিশ করে না, মাঝে মধ্যে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায় এটা স্বাভাবিক।

তিনি শুক্রবার বিকেলে মৌলভীবাজার জেলার শমসের নগরে শাহ্ তোরনের ফলক উম্মোচন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

ঢাকায় সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সাংবাদিক নির্যাতন পুলিশ করে না, মাঝে মধ্যে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায় এটা স্বাভাবিক।

উল্লেখ্যা, ২৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার তেল-গ্যাস-বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ডাকা অর্ধদিবস হরতাল চলাকালে বেসরকারি টিভি চ্যানেল এটিএন নিউজের দুই সংবাদকর্মীকে নির্যাতন চালিয়ে আহত করে পুলিশ।

এ ঘটনায় আহতরা হলেন, এটিএন নিউজের স্টাফ রিপোর্টার এহসান বিন দিদার ও ক্যামেরাম্যান আব্দুল আলীম। ঐ দিন দুপুর পৌনে দুইটায় রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

আহত সাংবাদিক এহসান বিন দিদার সহকর্মীদেরকে জানান, হরতালের সংবাদ কাভার করার জন্য তারা শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়েছিলেন। এ সময় শাহবাগ থানার এএসআই এরশাদ মণ্ডলের নেতৃত্বে চার-পাঁচজন পুলিশ সদস্য তাদের ওপর হামলা চালায়। কি কারণে হামলা চালিয়েছিল তা তারা বুঝতে পারেননি।

হামলায় ক্যামেরাম্যানের চোখের ওপরের অংশ কেটে গেছে। ক্যামেরা ভেঙে গেছে। রিপোর্টারের হাত এবং পা ভেঙে গেছে। তারা এখন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিত্সাধীন আছেন।

অথচ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বললেন ‘সাংবাদিক নির্যাতন পুলিশ করে না, মাঝে মধ্যে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায় এটা স্বাভাবিক। তাহলে প্রশ্ন থেকে যায় ‘ছবিতে যেখানে স্পষ্টত দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন প্রকার নির্যাতন সহ-লাথি মেরে নির্যাতন চালিয়েছে পুলিশ, তারপরও এটাকে তিনি কি করে স্বাভাবিক বললেন?

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অন্যান্য প্রসঙ্গে বলেন, পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট ডিএমপিতে চালু করা হয়েছে। আগামী কিছুদিনের মধ্যে সারা বাংলাদেশে পৃথকভাবে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট গঠন করার প্রক্রিয়া চলছে।

মন্ত্রী বলেন, আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি সঠিক না থাকলে উন্নয়নের চাকা বন্ধ হয়ে যাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর জন্য অনেক ইনভেস্ট করেছেন। আমরা অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেছি। অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে দেশের আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি অনেক ভাল। শমশেরনগরকে শিগগিরই একটি প্রশাসনিক থানায় উন্নীত করা হবে।

সার্চ কমিটি বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপত্তি ছাড়া বিএনপি কোন বিষয়েই মানে না। আপত্তি করাই বিএনপি’র প্রক্রিয়া। সময়মতো তারা নির্বাচনে ঠিকই যাবে। জঙ্গী মুসা বিষয়ে তিনি বলেন, জঙ্গী মুসা পুলিশের নজরদারিতে রয়েছে। যেকোন সময়ে গ্রেফতার হবে।

সুজা মেমোরিয়েল কলেজের অধ্যক্ষ বাবুল মুরশেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দা সায়রা মহসিন এমপি, কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আজিজুর রহমান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান, কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমদ ও মৌলভীবাজার চেম্বার সভাপতি কামাল হোসেন প্রমুখ। খবরের সূত্র বাসস।