Press "Enter" to skip to content

ঈদ জামাতকে ঘিরে পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা : ডিএমপি

ঈদ জামাতকে ঘিরে জাতীয় ঈদগাহ ও জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

আজ শনিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি একথা জানান।

এসময় ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম, মো. আবদুল বাতেনসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আছাদুজ্জামান মিয়া।
জাতীয় ঈদগাহ ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের কথা বলেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।জানান।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঈদ জামাতে মুসল্লিদের নিরাপত্তায় পোশাকধারী পুলিশ, সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ, সোয়াট, সিটিটিসি, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট নিয়োজিত থাকবে। পাশাপাশি ওই এলাকা পর্যবেক্ষণে ওয়াচ-টাওয়ার স্থাপন এবং পুরো এলাকা সিসি ক্যামেরা দিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হবে। এছাড়া আর্চওয়ের মধ্য দিয়ে মুসল্লিদের ঈদ জামাতে প্রবেশ করতে হবে।

ঈদের জামাতের জন্য জাতীয় ঈদগাহ ময়দান সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ঈদের দিন জাতীয় ঈদগাহে আগত মুসল্লিরা জায়নামাজ ও বৃষ্টি হলে ছাতা সঙ্গে নিয়ে ঈদগাহে আসতে পারবেন। এর বাইরে কোনো কিছু সঙ্গে নিয়ে আসা যাবে না। নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ মুসল্লিদের জায়নামাজ ও ছাতা তল্লাশির পর সেগুলো নিয়ে ঈদগাহে প্রবেশের অনুমতি দেবে ।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ঈদ জামাতে দাহ্য পদার্থ থেকে শুরু করে ব্যাগ, ছুরি ও দিয়াশলাই নিয়েও আসা যাবে না। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আব্দুল গণি রোড, মৎস্য ভবন ও আশপাশের রাস্তা বন্ধ (বেরিকেড) থাকবে। মুসল্লিদের এখান দিয়ে পায়ে হেঁটে আসতে হবে। এই বেরিকেডের ভেতর ভিভিআইপি ছাড়া কোনো গাড়ি চলাচল করতে দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন কমিশনার।

তিনি বলেন, সড়কে তল্লাশির পরও ঈদগাহের প্রধান গেটে মুসল্লিদের দ্বৈবচয়নের ভিত্তিতে তল্লাশি করা হতে পারে। পুরো এলাকায় ইতোমধ্যেই সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। পুলিশের কন্ট্রোল রুম থেকে এসব ক্যামেরার ফুটেজ রিয়েল টাইম নজরদারি করা হবে।

শেয়ার অপশন: