ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:১২ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ইস্তাম্বুল
পুলিশদের লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে

ইস্তাম্বুলে জোড়া বোমা বিস্ফোরণ, নিহত ২৯

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে একটি ফুটবল স্টেডিয়ামের কাছে বড় ধরনের দুটি বিস্ফোরণে অন্তত ২৯ জন নিহত ও ১৬৬ জন আহত হয়েছে।

শনিবার রাতে বেসিকটাস স্টেডিয়ামের কাছে এ হামলার ঘটনা ঘটে। খবর আনাদুলু, বিবিসি, রয়টার্স, দ্য গার্ডিয়ানের।

তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলেমান সলু এক ব্রিফিংয়ে বলেছেন, স্টেডিয়ামের বাইরে পুলিশ সদস্যদের লক্ষ্য করে একটি কার বোমা ও একটি আত্মঘাতী বোমা হামলা চালানো হয়।

এতে দুই পুলিশ সদস্য নিহত ও ২৩ জন আহত হয়েছেন। আহত পুলিশ সদস্যদের মধ্যে ১৭ জনের অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। আর ছয়জনকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশংকাজনক।

সুলেমান সলু জানান, বিস্ফোরণের পর ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে আটক করা হয়েছে।

বেসিকটাস স্টেডিয়ামে একটি ফুটবল ম্যাচের দুই ঘণ্টার মাথায় এ হামলা চালানো হয়। এরপরই স্টেডিয়াম সংলগ্ন সব রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়।

এখন পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে হামলায় জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস এবং কুর্দি সশস্ত্র যোদ্ধারা জড়িত বলে সন্দেহ করছে তুরস্ক।

তুরস্কের উপপ্রধানমন্ত্রী নুমান কুরতুলমাস বলেছেন, কার বোমা বিস্ফোরণের ৪৫ সেকেন্ড পরই আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হামলার পর সেখানে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে তুমুল গুলি বিনিময় হয়। প্রায় দুই ঘণ্টা পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

চলতি বছরে তুরস্কে এ নিয়ে পাঁচটি বড় ধরনের হামলার ঘটনা ঘটল। গত ২০ আগস্ট গজনিটেপ এলাকায় বিয়ের অনুষ্ঠানে হামলায় অন্তত ৩০ জন নিহত হয়। পরে আইএস এ হামলার দায় স্বীকার করে।

গত ৩০ জুলাই তুরস্কের সেনাবাহিনীর সঙ্গে কুর্দিদের সংঘর্ষে অন্তত ৩৫ জন নিহত হয়। ২৯ জুন ইস্তাম্বুল বিমানবন্দরে বন্দুকধারীদের হামলা ও বোমা বিস্ফোরণে ৪১ জন নিহত হয়। এ ঘটনারও দায় স্বীকার করে আইএস।

গত ১৩ মার্চ রাজধানী আঙ্কারাতে কুর্দি যোদ্ধারা হামলা চালালে অন্তত ৩৭ জনের প্রাণহানি হয়। আর ১৭ ফেব্রুয়ারি আঙ্কারাতেই সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে হামলা চালালে ২৮ জন নিহত হয়।