ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৫:৩৫ ঢাকা, বুধবার  ১৫ই আগস্ট ২০১৮ ইং

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু

‘ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া’কে অন্তর্ভুক্ত করে ওয়েজবোর্ড প্রণীত হবে’

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ২০১৭ সালের প্রথম দিকেই সম্প্রচার আইন, আধাবিচারিক কমিশন এবং ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া’কে অন্তর্ভুক্ত করে ওয়েজবোর্ড প্রণীত হবে।

বিশ্ব টেলিভিশন দিবস- ২০১৬ উপলক্ষে আজ সোমবার সকালে রাজধানীর সেগুন বাগিচাস্থ একটি হোটেলে মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশ আয়োজিত ‘সম্প্রচার সাংবাদিকতার উন্নয়ন অগ্রগতি : প্রেক্ষাপট বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

জঙ্গিমুক্ত বাংলাদেশ ও শান্তিময় বিশ্ব গড়তে টেলিভিশন অপরিমেয় ভূমিকা রাখতে সক্ষম উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, টেলিভিশনের একটি ছবি অনেক সময়ই দীর্ঘ বক্তৃতার চেয়েও মূল্যবান।

হাসানুল হক ইনু বলেন,গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমকে হাতের এপিঠ আর ও ওপিঠ হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ চলছে। গণতন্ত্রের অর্থ আইনের শাসন। তাই গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের নিরাপত্তা বিধানে আইন-কানুন আবশ্যক। সরকার সম্প্রচার নীতিমালা করেছে, আশাকরি ২০১৭ সালের প্রথম দিকেই সম্প্রচার আইন, আধাবিচারিক কমিশন এবং ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াকে অন্তর্ভূক্ত করে ওয়েজবোর্ড প্রণীত হবে।’

বিশ্ব টেলিভিশন দিবস উপলক্ষে টেলিভিশনসহ সকল গণমাধ্যমকর্মীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে হাসানুল হক ইনু বলেন, টেলিভিশন গণতন্ত্রকে গতিশীল করার একটি অনন্য মাধ্যম। এর তাৎক্ষণিক সংবাদ ও তথ্য জনগণের বহু জরুরি চাহিদা পূরণে ভূমিকা রাখে।
তথ্যমন্ত্রী সংবাদ ও তথ্য বাছাই ও সম্প্রচারে উৎকর্ষ সাধনের জন্য টেলিভিশন মাধ্যমে কর্মরতদের ক্রমাগত প্রশিক্ষণ এবং দেশ ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের আইন ও বিধিবিধান জানার ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন।

লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল ৩১৫-এ-২, বাংলাদেশ’র গর্ভনর লায়ন এমকে বাশারের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ, জাতিসংঘের বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ড. একে আব্দুল মোমেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন, বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আনোয়ারুল আলম চৌধুরী পারভেজ, বাংলাদেশ পুস্তক ও প্রকাশক সমিতির সহ-সভাপতি শরিফুল আলম, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, উত্তরা সেক্টর কল্যাণ সমিতির নিরাপত্তা সম্পাদক মো: নজরুল ইসলাম ভূইয়া, উইকলি সপ্তাহজুড়ের সম্পাদক সিকদার নজরুল ইসলাম এবং নদী ও নিরাপত্তার সংগঠন-নোঙর এর চেয়ারম্যান সুমন শামস বক্তৃতা করেন।
অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশ’র প্রধান নির্বাহী এম এম বাদশাহ।