Press "Enter" to skip to content

ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কি নিষেধাজ্ঞা আসছে?

ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন নিষেধাজ্ঞার টার্গেটে রয়েছে দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি, ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর ৮ জ্যেষ্ঠ কমান্ডার এবং তেহরানের তেল-বাণিজ্য।

বুধবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞার নির্দেশ দিয়েছেন। সৌদি আরবের তেলক্ষেত্রে হামলায় জড়িত সন্দেহে ইরানের বিরুদ্ধে এ অবরোধ আনছে যুক্তরাষ্ট্র।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, নতুন তালিকায় খামেনিসহ বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর ৮ জ্যেষ্ঠ কমান্ডারের নাম যুক্ত হতে পারে।

জুন থেকেই ইরানের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে দেশটি। ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির কার্যালয়ও নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনা হয়। আগস্টে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা তার সম্পদ বাজেয়াপ্ত করেছিল ট্রাম্প প্রশাসন।

এদিকে সৌদি তেল স্থাপনায় হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের চেষ্টাকে বেআইনি ও মানবতাবিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করছে ইরান।

বুধবার রাতে টুইটারে দেয়া এক পোস্টে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ বলেন, ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ সম্পূর্ণ বেআইনি ও মানবতাবিরোধী।

ইরানের বিরুদ্ধে আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে ‘অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ’ আখ্যায়িত করে জারিফ বলেন, নিষেধাজ্ঞা আরোপের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সাধারণ জনগণকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে। তারা চাপ প্রয়োগ করে আমাদের আলোচনায় বসাতে চায় কিন্তু তেহরান এমন কোনো চাপের সামনে নতিস্বীকার করবে না।

শেয়ার অপশন: