ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:৩৭ ঢাকা, সোমবার  ২৮শে মে ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

“ইতালিয় নাগরিক হত্যাকান্ড রাজনৈতিক”

আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি ইতালিয় নাগরিক সিজার তাবেলা হত্যাকে রাজনৈতিক হত্যাকান্ড হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, সরকারকে বিব্রত করার জন্যই এ হত্যাকান্ড সুপরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘ইতালির নাগরিক সিজার তাবেলা নিহত হয়েছে। তার কোনো ব্যক্তিগত ও পারিবারিক শত্রু নেই বলে জানা গেছে। তার হত্যাকান্ডের ধরন দেখে জানা গেছেÑ এটা ছিনতাইয়েরও কোনো ঘটনা নয়।’
আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘তিনি (সিজার তাবেলা) রাজনৈতিক কারণে হত্যাকান্ডের শিকার হয়ে থাকতে পারেন। কেননা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন জাতিসংঘের পুরস্কার গ্রহণ করছেন এবং বিশ্বের নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করছেন সেই সময়ে তাঁকে বিব্রত করার জন্যই এ হত্যাকান্ড ঘটানো হয়ে থাকতে পারে।’
হানিফ আজ বিকেলে নগরীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জাতীয় শ্রমিক লীগ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের উদ্যোগে আয়োজিত এক যৌথ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগদান শেষে আগামী ৩ অক্টোবর হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেয়া গণসংবর্ধনা সফল করার লক্ষ্যে এ যৌথ সভার আয়োজন করা হয়।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. শামসুল আলম বকুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরি সভাপতি ফজলুল হক মন্টু ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম।
মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করার মধ্যদিয়ে দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানানোর যে ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল সে ষড়যন্ত্র এখনও থেমে নেই।
তিনি বলেন, ২০০১ সালের ১ অক্টোবর পাতানো নির্বাচনের মধ্যদিয়ে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসার পর দেশকে দুর্নীতি ও জঙ্গীবাদের স্বর্গরাজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। যুক্তরাষ্ট্র দেশকে কালো তালিকাভুক্ত করেছিল।