Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:০৫ ঢাকা, শুক্রবার  ১৬ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ইউরোপিয়ান আদালতে বাংলাদেশে হত্যা, খুন, গুম ও অত্যাচার-নিপীড়নের অভিযোগ

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনরত বিরোধী নেতাকর্মীদের হত্যা, খুন, গুম ও অত্যাচার-নিপীড়নের অভিযোগে ইউরোপিয়ান মানবাধিকার আদালতে (ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইটস) একটি অভিযোগ করা হয়েছে। ওই মামলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পুলিশের আইজি শহীদুল হক, র‌্যাবের ডিজি বেনজির আহমদ এবং বিজিবি’র ডিজি মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদকে হুকুমের আসামি করা হয়েছে। গত ৩রা ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যস্থ শহীদ জিয়া স্মৃতিকেন্দ্রের ব্যানারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ দায়েরের কথা জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী শরিফুজ্জামান চৌধুরী তপন। বাংলাদেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অব্যাহত মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং আন্দোলনরত নেতাকর্মীদের প্রতি সম্প্রতি পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি প্রধানের প্রকাশ্য হুমকি, সে সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর যে কোন মূল্যে আন্দোলন দমনের হুমকির বিচারের দাবিতে একজন বৃটিশ বাংলাদেশী রাজনৈতিক সংগঠক হিসেবে বিবেকের তাড়নায় নিজে বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান শরিফুজ্জামান তপন। গত ৩০শে জানুয়ারি এ অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, গত বছর ৫ই জানুয়ারি প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করে ক্ষমতা দখল করে বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার। ক্ষমতার দখলদারিত্ব বজায় রাখতে তারা প্রতিনিয়ত মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। তারা মানুষের ভোটের অধিকার শুধু কেড়ে নেয়নি; সভা-সমাবেশের অধিকারও হরণ করেছে। প্রকাশ্যে হত্যাকা- চালানোর ঘোষণা দিয়ে এ সরকার ক্ষমতায় এসেছে উল্লেখ করে এতে বলা হয়, ২০০৬ সালের ২৮শে অক্টোবর লগি-বৈঠা নিয়ে রাস্তায় নামার ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। ওইদিন তারা প্রকাশ্য রাজপথে লগি-বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে মানুষ খুন করে উল্লাস করেছিল। ওই আন্দোলনের ফসল মইনুদ্দিন-ফখরুদ্দীনের হাত ধরে ক্ষমতাসীন হন শেখ হাসিনা।