ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:২০ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

আ. লীগ সভানেত্রীর হাত দিয়েই পৌরসভা নির্বাচনে অনিয়ম শুরুর অভিযোগ

সরকার প্রধান ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর হাত দিয়ে পৌরসভা নির্বাচনে অনিয়ম শুরু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তার শংকা, সরকার প্রধানের হাত দিয়েই যখন অনিয়ম শুরু তখন এই নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার আর সুযোগ থাকে না।
বুধবার রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এমন মন্তব্য করেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশনের বিধি ১২-তে বলা আছে, দলীয় প্রতীকে দল থেকে একজনকেই মনোনয়ন দেয়া যাবে। কিন্তু শরীয়তপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর মনোনয়ন যাচাই বাছাই হয়ে ৭ ডিসেম্বর বাতিল হয়ে যাওয়ার পরও ওই দিনই আরেকটি মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী।
নিয়ম অনুযায়ী ওই মনোনয়ন পত্রে স্বাক্ষর করেছেন দলীয় প্রধান ও সরকার প্রধান শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, শরিয়তপুর সদর, বরগুনার বেতাগী, খুলনার পাইকগাছা ও মাগুরা সদরেও একই অনিয়ম হয়েছে। এই চারটি ক্ষেত্রে সুস্পষ্ট তথ্য আছে। কিন্তু এর বাইরে হয়তো আরও থাকতে পারে।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, যেহেতু একই জায়গায় একাধিক মনোনয়ন পত্র দাখিল করা হলে সবগুলোই বাতিল হয়ে যাবে তার পরও সেখানে জেলা রিটার্নিং অফিসার তার মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের জন্য রেখে দিয়েছেন। এতে প্রমাণ করে নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে কাজ করছে না।
মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা মনে করি দলীয় প্রধান ও সরকার প্রধান নিজেই নির্বাচনের এই বিধি ভেঙ্গেছেন এবং তার হাত দিয়েই নির্বাচনে অনিয়মের সূচনা হয়েছে। তাই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন করা নির্বাচন কমিশনের পক্ষে সম্ভব হবে না।
সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান এম হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, আবদুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মো. শাহজাহান প্রমুখ উপস্থি ছিলেন।