Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:০০ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২০শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

আমাকে মাইনাস করার পরিকল্পনা হচ্ছে

৫ জানুয়ারি নির্বাচনকে ইতিহাসের সবচে বড় প্রহসন আখ্যা দিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বলেছেন, সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রক্ষার অজুহাতে ৫ জানুয়ারি এককভাবে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ। সে সময় সমঝোতার মাধ্যমে সব দলের অংশগ্রহণে মধ্যবর্তী নির্বাচন দেয়ার কথা বলেছিল তারা। কিন্তু এখন তারা নিজেদের অঙ্গীকার মানছে না।

তিনি বলেন, গত এক বছরে সর্বোচ্চ সংযম বজায় রেখেছি। একটা বছর তো সময় দিলাম আমরা, আর সময় নেই। তাই ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে সারা দেশে সমাবেশ, কালো পতাকা মিছিল করবে বিএনপি।

বুধবার গুলশানের কার্যালয়ে আয়োজিত এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, জাতীয় সংসদ কার্যত বিরোধী দলশূন্য হয়ে পড়েছে। কোনো বিরোধী দল ৫ জানুয়ারিরর নির্বাচনে অংশ নেয়নি। ৯৫ শতাংশ লোক নির্বাচন বর্জন করেছে।’ ভোটবিহীন নির্বাচনের এ সরকার জবাবদিহিতায় বিশ্বাস করে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বকশীবাজারে বিএনপির মিছিলে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ করে বলেন, ‘আমাকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করার পরিকল্পনা হচ্ছে। কিন্তু আমাকে মাইনাস করার সিদ্ধান্ত কেবল জনগণই নিতে পারেন।’

তিনি আরো বলেন, ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে সরকার বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো নিজেদের কব্জায় রাখতেই গণমাধ্যম নীতিমালা করেছে। একইভাবে বিচারবিভাগকে নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে সংবিধান সংশোধন করেছে আওয়ামী লীগ।

সংবাদ সম্মেলনে চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে ৭টি প্রস্তাব দিয়েছেন খালেদা জিয়া। এগুলো হচ্ছে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন দিতে হবে, নিরপেক্ষ ব্যক্তিদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন, ভোটার নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার সাথে সাথে সংসদ ভেঙে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর, নির্বাচনের অবাধ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করতে সশস্ত্র বাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে মাঠে নামাতে হবে, নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর আগে সারা দেশ থেকে অস্ত্র উদ্ধার ও সন্ত্রাসী ধরতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা এবং রাজবন্দিদের মুক্তি দেয়ার পাশাপাশি সব রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার এবং বন্ধ সকল সংবাদপত্র ও স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল খুলে দেয়ার প্রস্তাব দেন।

প্রস্তাব উপস্থাপন শেষে খালেদা জিয়া বলেন, এখন সরকারকেই ঠিক করতে হবে তারা প্রস্তাব মেনে নেবে, নাকি আন্দোলন মোকাবিলা করবে। এখনও বিএনপি আন্দোলনের শক্তিও রাখে। যখনই প্রয়োজন আমাকে রাজপথে পাবেন।

বিএনপি নেতারা আন্দোলনের ডাক দিয়ে রাস্তায় থাকে না- এমন কথা অস্বীকার করে খালেদা জিয়া বলেন, নেতারা রাস্তায় থাকে না, এটা এজেন্সির বানোয়াট খবর। আমাদের নেতারা সব সময় রাস্তায় থাকেন। সামনে দিকে যখন প্রয়োজন নেতারা মাঠে থাকবেন।