আফজাল হোসেন
আফজাল হোসেন

আবজালকে দুর্নীতিতে সহযোগিতা, ৬ ডাক্তারকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হিসাবরক্ষক আবজাল হোসেনের দুর্নীতিতে সহযোগিতার অভিযোগে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা. রেজাউল করিমসহ ছয় চিকিৎসককে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার সকাল ১০টায় তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়েছে।

যাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে, তারা হলেন- কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মায়েনুল, মেডিসিন বিভাগের সহযাগী অধ্যাপক ডা. মো. ফরহাদ হোসেন, সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন, মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আব্দুল মাজেদ ও হেপাটোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. আবুল বারকাত মুহাম্মদ আদনান।

গত ২৪ মার্চ কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ১৩ কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ ১৪ জনকে তলব করে নোটিশ পাঠায় দুদক।

পর্যায়ক্রমে তাদের ১, ২ ও ৩ এপ্রিল সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

প্রসঙ্গত দুর্নীতির অনুসন্ধানে নেমে গত ১০ জানুয়ারি আবজালকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। এর আগে ৬ জানুয়ারি আবজাল হোসেন ও তার স্ত্রী রুবিনা খানমের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) বিশেষ পুলিশ সুপার (ইমিগ্রেশন) বরাবর চিঠি দেয় দুদক।

১০ জানুয়ারি আবজালকে দুদকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদকের অনুসন্ধান টিম। ২১ জানুয়ারি দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আবজাল হোসেন ও তার স্ত্রী রুবিনা খানমের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ ক্রোক অর্থাৎ হস্তান্তর বা লেনদেন বন্ধ এবং ব্যাংক হিসাবগুলোর লেনদেন জব্দ (ফ্রিজ) করার আদেশ দেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত, তা এরই মধ্যে কার্যকরও হয়েছে।

তাদের অবৈধ স্থাবর সম্পদ এরই মধ্যে ক্রোক করা হয়েছে। উত্তরার ৫টি বাড়ি ও বাড্ডায় একটি ফ্ল্যাটে ১৮ মার্চ আদালতের ক্রোকের নোটিশ টানিয়ে দেয়া হয়।