আফগানিস্তানে ড্রোন হামলায় ৩০ শ্রমিক নিহত ও আত্মঘাতী গাড়ি বোমা হামলায় ২০ জন নিহত হয়েছে। খবর আরএফই/আর এলের।

আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলে মার্কিন-সমর্থিত আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর ড্রোন হামলায় অন্তত ৩০ শ্রমিক নিহত ও ৪০ জন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির কর্মকর্তাদের বরাতে আলজাজিরার খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

তিন সরকারি কর্মকর্তারা বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, আইএসের গোপন আস্তানা ধ্বংস করে দিতে বুধবার রাতে এ অভিযান চালানো হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। কিন্তু দুর্ঘটনাবশত পার্শ্ববর্তী ক্ষেতের কৃষকরা লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হন।

পশ্চিমাঞ্চলীয় নানগাহারের প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য সোহরাব কাদেরি বলেন, পাইন বাদাম ক্ষেতে ড্রোন হামলায় ৩০ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এছাড়াও আহত হয়েছেন অন্তত ৪০ জন।

হামলার খবর নিশ্চিত করেছে কাবুলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের খবর জানাতে অস্বীকার করেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে মার্কিন বাহিনীর কাছ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

নানগাহারের মুখপাত্র আতুল্লাহ খোজিয়ানি হামলার ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় সরকার তদন্ত চালাচ্ছে। হামলার স্থল থেকে এখন পর্যন্ত ৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

ওয়াজির টাঙ্গিতে উপজাতীয় প্রবীণ মালিক রাহাত গুল বলেন, শ্রমিকরা যখন ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন, তখন ওই হামলার ঘটনা ঘটেছে। হতাহতরা দৈনিক মজুরিভিত্তিতে কাজ করতেন। ক্ষেত থেকে পাইন বাদম তুলে কাছেই একটি তাবুতে বিশ্রাম নিতে জড়ো হয়েছিলেন তারা।

তিনি বলেন, শ্রমিকরা খড়কুটোতে আগুন জ্বালিয়ে একসঙ্গে বসেছিলেন। তখনই তাদের ড্রোন হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করা হয়েছে।

এ ছাড়া বৃহস্পতিবার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ জাবুলে তালেবানের আত্মঘাতী গাড়ি বোমা হামলায় অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছেন।

চলতি মাসের শুরুতে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ প্রশিক্ষিত ও তহবিলের জাতীয় নিরাপত্তাবিষয়ক পরিদফতরের (এনডিএস) গোয়েন্দা সংস্থা ২ ইউনিটের এক অভিযানে চার ভাই নিহত হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যকার শান্তি আলোচনা ভেঙে যাওয়ার পর গত কয়েক সপ্তাহে কয়েকশ বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন।

তালেবান হুশিয়ারি করে বলছে, আলোচনা স্থগিত করার সিদ্ধান্তের কারণে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুশোচনা করতে হবে।