ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৫০ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

আপনি বিচার করার কে?

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, জাতীয় পার্টির (জাপা) সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান নারায়ণগঞ্জের পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে লাঞ্ছিত করে সংসদ সদস্যদের মর্যাদা ক্ষুণ্ন করেছেন।

সেলিম ওসমানকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আপনি একজন এমপি। কিন্তু এমপির মর্যাদা কিভাবে রাখতে হয় আপনি জানেন না। আপনি আঙুল দেখিয়ে বললেন ক্ষমা চাইবেন না। এটা হতে পারে? এত বড় দম্ভোক্তি ভালো না।’

নাসিম আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৫তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগ আয়োজিত সংবাদচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন।

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য আতাউর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, এই ঘটনায় যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কারণ আমি পার্লামেন্টের সদস্য। এ ধরনের আচরণ একজন পার্লামেন্টের সদস্য করলে আমি লজ্জা পাই, নিজেকে ছোট মনে করি, অপরাধবোধে ভুগি।’

তিনি বলেন, সেই শিক্ষক যদি অন্যায় করেই থাকেন তাহলে তাকে আইনের হাতে তুলে দিতেন। আপনি একজন আইনপ্রণেতা হয়ে আইন নিজের হাতে তুলে নিলেন কি করে। কিন্তু আপনি তা না করে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছেন। নিজেই বিচার করেছেন। আপনি বিচার করার কে? আপনি আইন নিজের হাতে তুলে নিতে পারেন না। একজন সংসদ সদস্য প্রকাশ্যে যে কাজটি করেছেন, এটা ক্ষমাহীন অপরাধ।

সেলিম ওসমানের ব্যাপারে জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নীরবতায় ক্ষোভ প্রকাশ করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আপনার দলের একজন সংসদ সদস্য শিক্ষককে এত বড় অপমান করল, আপনি কোনো কথা বলেন না কেন? এত উপদেশ দেন বিভিন্ন সময়ে, এখন চুপ হয়ে আছেন কেন? আপনাদের কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের সব সময় ভালো ভালো কথা বলেন। তিনিও এ ব্যাপারে কথা বলেননি।