Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৮:০১ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

রুহুল কবির রিজভী
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ফাইল ফটো

আন্দোলন দমনের ‘টেস্ট কেস’ মাদকবিরোধী অভিযান : রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দেশে মাদকবিরোধী যুদ্ধের আড়ালে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড চলছে, বন্দুকযুদ্ধের নামে দেশব্যাপী মানুষ হত্যার বিভীষিকা চলছে। এই বেআইনি হত্যার জন্য সরকারই দায়ী। সরকার আসন্ন আন্দোলন সম্পর্কে ভীত হয়েই মানুষ হত্যায় লিপ্ত হয়েছে। জনমনে ভয় ধরিয়ে মাদকবিরোধী অভিযানে বন্দুকযুদ্ধের নামে ব্যাপক হত্যাকাণ্ড মূলত ঈদ পরবর্তী আন্দোলন দমনে একটি টেস্ট কেস।

আজ নয়াপল্টনে দলের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

‘এ ধরনের মহৎ অভিযানে দু’একটি ভুল হতেই পারে-’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, মানুষের জীবন নিয়ে ভুল! তার এই বক্তব্য মানবাধিকারকে ঠাট্টা করা। ড্রাগ চেইনের লিংক হিসেবে চুরি চোট্টামি করা ছিঁচকে আর প্রমাণহীন কিছু অজ্ঞাত মানুষের বিরুদ্ধে হত্যা অভিযান চালানো হয়েছে। কিন্তু, এই চেইনের শীর্ষে থাকা অমিত ক্ষমতাধর গডফাদাররা এখনো বসে আছে।

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, মাদক সরবরাহের উৎস পথ আটকানো হচ্ছে না কেন? তাহলে কারা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে মাদক ঢুকতে সহায়তা করছে? রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া কি উৎসমুখ খোলা থাকে? এর একটিই কারণ, এই উৎসমুখগুলো নিয়ন্ত্রণ করেন বদির মতো এমপিরা, প্রশাসনের সহায়তায়।

রিজভী বলেন, বদিসহ ক্ষমতাসীনদের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা কিভাবে এতগুলো গোয়েন্দা সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে দেশ ছেড়ে গেল, জাতি জানতে চায়। সরকারই গডফাদারদের পালিয়ে যেতে সাহায্য করছে না তো, এমন প্রশ্নও কিন্তু উঠছে? তিনি বলেন, বেআইনি হত্যাকাণ্ডের মধ্যদিয়ে সরকার তার টিকে থাকার সমাধান খুঁজছে। সরকার বাংলাদেশে একটি এতিম জেনারেশন তৈরি করতে চাইছে। কিন্তু, তারা ভুলে গেছে অন্যায়ের প্রতিশোধ প্রকৃতি নিজেই নেয়।