ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:১০ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টি করা হলে কঠোর হস্তে দমন করা হবে

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিএনপি নেতাদের আন্দোলনের হুমকির জবাবে বলেছেন, আন্দোলনের নামে যদি কোন ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করা হয়, তাহলে তাদের কঠোর হস্তে দমন করা হবে।
তিনি বলেন, ‘মনে রাখবেন এটা ২০১৩ সাল নয়। এটা ২০১৪ সাল। যদি কোনভাবে বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি করা হয়, তাহলে কঠোর হস্তে দমন করা হবে।’
তোফায়েল আহমেদ আজ বুধবার বিকেলে ঢাকা জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
ঢাকা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহববুর রহমান ব্যাপারীর সভাপতিত্বে সম্মেলনে খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম, স্বেচ্ছাস্বেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওছার, সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথ এমপি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
বিএনপির সংলাপের অহবান প্রসঙ্গে তোফায়েল আহমেদ বলেন, এখন বিএনপি এতিমের মত বারবার সরকারের কাছে সংলাপের আহবান জানাচ্ছে। কিন্তু যে দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিফোন করে সংলাপের আহবান জানিয়েছিলেন বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া তা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। এখন সংলাপ হবে অনেক পরে। আপনারা নির্বাচন করেননি আমরা কি করবো?
বিএনপির মধ্যবর্তি নির্বাচনের দাবী প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রবীন এই নেতা বলেন, বেগম জিয়া আপনি নির্বাচনের ট্রেন মিস করেছেন। এখন পরবর্তি নির্বাচনী ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করুন। ২০১৯ সালে নির্বাচন হবে। তখন আপনাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে অংশ নিতে হবে।
এসময়ে তোফায়েল আহমেদ বেগম জিয়াসহ বিএনপি নেতাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবন পাঠ করার আহবান জানান।
‘সরকার তৈরি পোশাক শিল্পকে ধ্বংস করেছে’ বেগম খালেদা জিয়ার এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া কি ভাবে এই কথা বললেন? তিনি তো প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি কেন না বুঝে কথা বলবেন।
বিএনপির জানুয়ারিতে সরকার পতনের আন্দোলনের হুমকির জবাবে কামরুল ইসলাম বলেন, আপনাদের এমন আরও ৪টা জানুয়ারি পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। তারপর ২০১৯ সাল আসবে। তখন এদেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আপনারা তার জন্য প্রস্তুতি নিন।