প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন

‘আদর্শ ও নৈতিকতা দূরে সরে যাচ্ছে’ -প্রধান বিচারপতি

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, দুর্নীতি দমনে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই। বলেছেন, দুর্নীতি দমনে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই।

দুর্নীতির কারণে মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ও চেতনার অবমাননা হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আদর্শ ও নৈতিকতা সমাজ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে এদেশের যুবসমাজ সবচেয়ে বড় শক্তি। তাই দুর্নীতি প্রতিরোধে তাদেরকে এগিয়ে আসতে হবে।’

প্রধান বিচারপতি আজ রোববার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।

আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উপলক্ষে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘অদম্য আগ্রহ, সৃজনশীলতা এবং সুন্দর বাংলাদেশ গঠনের স্বপ্ন নিয়ে দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তরুণদের সর্বাত্মক অংশগ্রহণ আজ সময়ের দাবি।’

তিনি বলেন, দেশপ্রেম, আদর্শ ও নৈতিক মূল্যবোধের ভিত্তিতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অবস্থান গ্রহণ করতে হবে।

দুর্নীতি বিরোধী গণজাগরণে আগামী প্রজন্মকে সম্পৃক্তকরণে দুদকের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘দুর্নীতি সমাজে অর্থনৈতিক বৈষম্য সৃষ্টি করে ও সুষম রাষ্ট্রীয় উন্নয়ন ব্যাহত করে। এই সমস্যা প্রতিরোধ করার লক্ষ্যে দুদককে একটি বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। এ প্রতিষ্ঠান সৃষ্টির ফলে ক্ষমতাবান দুর্নীতিবাজরা শঙ্কিত হয়ে পড়েছে।’

জাতির ভবিষ্যত গতিপথ নির্ভর করে দেশের তরুণ প্রজন্মের উপর এ কথা উল্লেখ করে তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তরুণ প্রজন্ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালে দেশ দুর্নীতিমুক্ত হতে বাধ্য।

তিনি বলেন, দুর্নীতিকে ‘না’ বলার প্রত্যয়দীপ্ত অঙ্গীকার নিয়ে সর্বাত্মক নৈতিকতা চর্চার সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।
অন্যান্যের মধ্যে দুদক কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান ও এএফএম আমিনুল ইসলাম, দুদকের সচিব ড.মোঃ শামসুল আরেফিন প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ।

আলোচনা শেষে অতিথিরা দুর্নীতিবিরোধী মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

এর আগে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ আজ সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ দুর্নীতি দমন কমিশনের সামনের সড়কে শান্তির প্রতীক পায়রা ও ফেস্টুন উড়িয়ে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসের উদ্বোধন ঘোষণা করেন ।