Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১:৩৮ ঢাকা, রবিবার  ১৮ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

মুস্তফা কামাল
পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, ফাইল ফটো

‘অর্থনৈতিক বলয় গড়ে তুলতে ঐক্যবদ্ধের বিকল্প নেই’

ভারতের নয়া দিল্লীতে অনুষ্ঠিত এক ‘আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সম্মেলনে’ দক্ষিণ এশিয়ার প্রতিটি দেশের স্ব-স্ব সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে এ অঞ্চলের দেশগুলোকে সমন্বিত কার্যক্রম পরিচালনার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

ওয়াল্ড ইকনোমি ফোরাম (ডব্লিওইএফ) এবং কনফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রি (সিআইআই) যৌথভাবে এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

আজ শুক্রবার বাংলাদেশের পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ সম্মেলনে বক্তৃতা করেন। তিনি বলেন, এ অঞ্চলের প্রত্যেক দেশকে তাদের নিজেদের আওতায় থাকা সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে ঐক্য আরও সুদৃঢ় করতে হবে।

আকর্ষণীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং এ অঞ্চলের কর্মক্ষম সকল জনগোষ্ঠীকে কাজে লাগিয়ে লাভবান হওয়ার জন্য দক্ষিণ এশিয়া খুবই সম্ভাবনাময় একটি অঞ্চল বলে পরিকল্পনামন্ত্রী মুস্তফা কামাল উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, ‘ফলপ্রসূ ও একিভূত একটি আঞ্চলিক অর্থনৈতিক বলয় গড়ে তুলতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার কোন বিকল্প নেই । তিনি বলেন বাংলাদেশ, ভুটান, নেপাল ও ভারতের মধ্যে হাইড্রো-ইলেকট্রিক ক্ষেত্রে সুদৃঢ় সহযোগিতা সম্প্রসারণের মাধ্যমে দেশসমূহের লাভবান হওয়ার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে।

শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রী এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের মন্ত্রী, পদস্থ সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, বিনিয়োগকারী এবং মিডিয়া ব্যক্তিত্বগণ এ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

আজ ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।

এতে জানানো হয়, আ হ ম মুস্তফা কামাল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরে বলেন, বৈশি^ক মন্দা সত্ত্বেও বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় যুগান্তকারী সফলতা অর্জন করেছে। দারিদ্র্য বিমোচনসহ বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশের বিষ্ময়কর অগ্রগতি হয়েছে।

বাংলাদেশের পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সম্মেলনের সাইড লাইনে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর ট্রান্সফরমিং ইন্ডিয়ার (আইয়গ) ভাইস-চেয়ারম্যান অরবিন্দপানগারিয়ার সাথে বৈঠক করেন।

বৈঠকে তারা বাংলাদশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিশেষ করে অর্থ-বাণিজ্যখাতের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।
উল্লেখ্য, ওয়াল্ড ইকনোমি ফোরাম পাবলিক প্রাইভেট সহযোগিতার একটি আন্তর্জাতিক ফোরাম।