ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:৩২ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

কুমিল্লায় প্রতিবাদ বিক্ষোভের অংশ বিশেষ

অরাজনৈতিক আন্দোলনের দিকে ‘তনু’ হত্যার বিচারের দাবি

nirzaton4

কুমিল্লার প্রতিবাদের অংশ বিশেষ

কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজের ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর রক্তাক্ত ছবি ফেসবুকসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ধারণ আকার করছে। তনুর খুনি/খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবিতে সোচ্চার হয়ে উঠেছে ভার্চুয়াল জগত। ফুঁসে উঠছে অজানা-আচেনা ‘তনুর’ জন্য বিবেকবান সব জনতা। তাদের প্রতিবাদের যায়গা সোশ্যাল মিডিয়ার গণ্ডি পেরিয়ে এখন সড়কের দিকে ধাবিত হচ্ছে। সব মিলিয়ে দেখা যাচ্ছে একটা অরাজনৈতিক আন্দোলনে রূপ নিতে যাচ্ছে তনু হত্যার বিচারের দাবি।

nirzaton10

গণজাগরণ মঞ্চের প্রতিবাদ

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার পর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনুর খুনীদের ফাঁসির দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠেছিল কুমিল্লা নগরী। কুমিল্লা শহরের প্রাণকেন্দ্র পূবালী চত্বরে জমায়েত হয়ে বিক্ষোভে অংশ নেন সর্বস্তরের ছাত্র-জনতা।

nirzaton6

ফেসবুক থেকে নেয়া

কুমিল্লা পূবালী চত্বরের বৃহস্পতিবারের বিক্ষোভে জেলার সহকারী পুলিশ সুপার ইমতিয়াজ আহমেদ দোষীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শান্তির ব্যবস্থা করা হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের সাবেক সভাপতি আল আমিন জানান, সোহাগী জাহান তনু আমাদের সংগঠনের সদস্য ছিল। তার হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে সংহতি জানান সাংস্কৃতিক সংগঠক শহীদুল হক স্বপন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা যুবদল সভাপতি আমিরুজ্জামান আমির, দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সভাপতি উৎবাতুল বারী আবু,মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুল আজিজ সিহানু, ছাত্রলীগ নেতা রোকন উদ্দিন ও শাওন প্রমুখ।

nirzaton7

ফেসবুক থেকে নেয়া

এদিকে বৃহস্পতিবার তনু হত্যার প্রতিবাদে লাকসামেও মানববন্ধন করা হয়েছে। শহরের বাইপাস সড়কে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন লাকসাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম হিরা, যুবলীগ নেতা আলহাজ মোশারফ হোসেন মজুঃ, নাট্যকর্মী রুবেল প্রমুখ।

nirzaton11

রাফিজা ইমরোজের গুগল প্লাস থেকে নেয়া। Rafeza Imrose

বুধবারও রাজধানীতে তনু হত্যার বিচারের দাবিতে বিভিন্ন সংগঠন মানববন্ধনসহ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে।

উল্লেখ্য, গত রোববার সন্ধ্যায় টিউশনি করে বাসায় ফেরার পথে কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকায় পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যার শিকার হন তনু। পরে রাত ১১ টার দিকে সেনানিবাসের পাওয়ার হাউসের পানির ট্যাংক সংলগ্ন স্থানে তনুর অর্ধনগ্ন ও ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্বার করা হয়।