ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৫৫ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক

অভিযোগ: ‘মীর কাসেমের রায় অন্যদিকে চলে যেত’

সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী দুই মন্ত্রীর আদালত নিয়ে বিতর্কিত বক্তব্যের ইঙ্গিত করে বলেছেন, ওই বক্তব্যের জন্যই মীর কাসেমের এই রায় এসেছে। না হলে রায় অন্যদিকে চলে যেত।  তিনি আপিলের রায় বদলাতে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ তুলেছেন। যুদ্ধাপরাধের বিচার নিয়ে মঙ্গলবার রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় তিনি এ অভিযোগ তোলেন।

সার্ব নেতা রাদোভান কারাদজিচের যুদ্ধাপরাধের বিচার এবং বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালের বিচার নিয়ে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

প্রসঙ্গত, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ গত ৮ মার্চ মীর কাসেমের মামলার চূড়ান্ত রায় ঘোষণার আগে শুনানিতে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার এক মন্তব্য ঘিরে নানামুখী আলোচনা শুরু হয়।

ওই সময় এক গোলটেবিল আলোচনায় খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক মীর কাসেমের ফাঁসি বহাল রাখা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে প্রধান বিচারপতিকে বাদ দিয়ে নতুন বেঞ্চে পুনঃশুনানির দাবি তোলেন।

অবশ্য শেষ পর্যন্ত আপিলের রায়েও মীর কাসেমের ফাঁসির আদেশ বহাল থাকে। আর আদালত অবমাননার দায়ে দুই মন্ত্রীকে অর্থদণ্ড দেন আপিল বিভাগ।

inu18

ওই প্রসঙ্গ টেনে সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘(দুই মন্ত্রীর) ওই ঘটনার (বক্তব্যের) জন্যই মীর কাসেমের এই রায় এসেছে। না হলে রায় অন্যদিকে চলে যেত। কত টাকার যে লেনদেন হয়েছে…।’

কলেজছাত্রী তনু হত্যার বিচার নিয়ে প্রধান বিচারপতির মন্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘তনু হত্যা সম্পর্কে চিফ জাস্টিস যা বলেছেন, তা যদি রাস্তার কোনো লোক বলতো- মানা যেত। তিনি বলেছেন- বর্তমান আইনে তনু হত্যার বিচার করা সম্ভব নয়। এটা কেমন কথা হতে পারে?’

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের শুরুতে এক অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, তনু হত্যার ঘটনা একটি আধুনিক অপরাধ। পুরনো ফৌজদারি আইন দিয়ে এর সুষ্ঠু তদন্ত কিংবা বিচার সম্ভব নয়।

আইনপ্রণেতারা অজ্ঞ- প্রধান বিচারপতির এমন বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন শামসুদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আমাদের সংসদে অনেকেই আছেন যারা বিশ্বমানের। সে কারণেই সিপিএ এবং আইপিইউতে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দিচ্ছে।’

আপিল বিভাগের সাবেক এ বিচারপতি আরও বলেন, ‘সংসদে কোনো আইন তৈরি হয় না। সংসদে আইন আসে খসড়া হিসাবে। এটা তৈরি করে আইন মন্ত্রণালয়ের ড্রাফটিং ইউনিটের বিশেষজ্ঞরা।’

এর আগেও বিভিন্ন সময়ে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার সমালোচনায় মুখর হয়েছেন শামসুদ্দিন চৌধুরী।

সাবেক রাষ্ট্রদূত ওয়ালিউর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান খান।