Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৩:২৪ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

অবরোধের পাশাপাশি সারাদেশে ৭২ ঘন্টার হরতাল চলছে

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০দলীয় জোটের ডাকা দেশব্যাপী ৭২ ঘণ্টার হরতাল চলছে। রোববার ভোর ৬টা থেকে এ হরতাল শুরু হয়। চলবে বুধবার ভোর ৬টা পর্যন্ত।
র‌্যাবের হাতে আটক হবার আগে গত শুক্রবার বিকালে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই হরতাল ঘোষণা করা হয়। এছাড়া লাগাতার অবরোধও অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেয়া হয়।
হরতাল ঘোষণার বিবৃতিতে বলা হয়, আওয়ামী লীগ নেতাদের পক্ষ থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোট নেতা খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয় উড়িয়ে দেয়া, বিএনপি চেয়ারপারসনকে গ্রেফতারের হুমকির প্রতিবাদে এবং নেতাকর্মীদের হত্যা, নির্যাতন-গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও ভোটের অধিকারসহ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবিতে এ হরতাল ঘোষণা করা হলো।
বিবৃতিতে আরও বলা হয়, চলমান আন্দোলন দমনে পুলিশকে যেকোন পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নিজে দায়িত্ব নেবেন বলে যে আতঙ্ক ও উদ্বেগজনক বক্তব্য রেখেছেন তার প্রতিবাদে, ২১ নেতাকর্মীকে হত্যা ও ক্রসফায়ারেরে নামে হত্যার প্রতিবাদে, সারাদেশে ১৫ হাজারের অধিক বিএনপি ও জোটের নেতাকর্মীকে গ্রেফতার এবং দেশব্যাপী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দেড় লক্ষাধিক মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রতিবাদে, সারাদেশে বিএনপি ও জোটের নেতাকর্মীদের বাড়ীতে যৌথবাহিনীর আক্রমণ এবং কাঙ্খিত ব্যক্তিকে না পেয়ে বাড়ির লোকজনের সঙ্গে দুর্ব্যবহারসহ বাড়ির নিরীহ লোকজনকে আটক ও বাড়িঘরের জিনিসপত্র লুটপাটের প্রতিবাদে এবং সরকারি এজেন্ট দিয়ে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে সাধারণ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে নাশকতা সৃষ্টি করার পর এর দায় আন্দোলনকারীদের ওপর চাপানোর প্রতিবাদে গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে এ হরতালের ডাক দেয়া হয়।
বিবৃতিতে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীসহ দেশবাসীকে শান্তিপূর্ণ ও স্বতঃস্ফুর্তভাবে ৭২ ঘণ্টার হরতাল পালনের আহ্বান জানানো হয়।
এদিকে হরতাল-অবরোধকে ঘিরে রাজধানী বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। মোতায়েন রয়েছে পুলিশ ও বিজিবি। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের যৌথ টহল টিম নামানো হয়েছে। দেশের অন্যান্য নগর মহানগর ও গুরুত্বপূর্ণ জেলাগুলোতে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। হরতাল-অবরোধের সমর্থনে পিকেটিং ঠেকাতে সর্বত্র আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সতর্ক তৎপরতা চোখে পড়ার মতো। সারাদেশে ২০৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।
হরতালে রাজধানীতে সীমিত সংখ্যক গণপরিবহন চলাচল করলেও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল তেমনটি চোখে পড়ার মতো নয়। ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক। তবে যাত্রী কম থাকায় নির্ধারিত সময়ের পর এ যানগুলো ছাড়ছে। তবে গাবতলি, সায়েদাবাদ ও মহাখালী থেকে দূরপাল্লার কোন বাস ছেড়ে যায়নি। একইভাবে দূরপাল্লার কোন যান ঢাকায় প্রবেশ করেনি।
এদিকে দেশের বিভিন্ন জেলায়ও চলছে শান্তিপূর্ণ হরতাল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সতর্ক প্রহরার মধ্যেও হরতাল-অবরোধের সমর্থনে বিচ্ছিন্ন ও বিক্ষিপ্ত মিছিল-পিকেটিং করছে বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীরা। অভ্যন্তরিণ ও দূরপাল্লার সড়কে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে জেলা সদর, নগর-মহানগরগুলোতে কিছু হালকা যানবাহন চলাচল করার খবর পাওয়া গেছে।