ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:০১ ঢাকা, রবিবার  ১৯শে আগস্ট ২০১৮ ইং

মাহবুব-উল আলম হানিফ
আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি, ফাইল ফটো

অন্য ধর্মের ওপর আঘাতকে বরদাশত করা হবে না : হানিফ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে অন্য কোন ধর্মের ওপর আঘাতকে বরদাশত করা হবে না।

তিনি বলেন, ‘ গত ২৯ অক্টোবর বাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাড়ী-ঘরে হামলা চালানো হয়েছে।’

আওয়ামী লীগের এ নেতা আরো বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্র হিসেবে ফেসবুকের কোন স্ট্যাটাস বা গুজবের ওপর ভিত্তি করে অন্য কোন ধর্মের ওপর কোন আঘাতকে কখনো মেনে নেওয়া হবে না।

মাহবুব-উল আলম হানিফ আজ সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সদ্য সমাপ্ত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও সাম্প্রতিক কয়েকটি বিষয় নিয়ে দলীয় অবস্থান তুলে ধরতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।

মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, নাসিরনগরে যার ফেসবুক থেকে স্ট্যাটাসটি পাঠানো হয়েছিল তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি তার ফেসবুক হ্যাক করে ওই স্ট্যাটাসটি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ইচ্ছাকৃতভাবে এ স্ট্যাটাস পাঠানো হলে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এ ব্যাপারে ইতোমধ্যে দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা আরো বলেন, হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল পাঠানো হয়েছে। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা হামলা বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমান কম হয়েছে।

কোন গুজব বা ষড়যন্ত্রমূলক ধর্মীয় উস্কানীতে বিভ্রান্ত হয়ে অন্য ধর্মের ওপর আঘাত কখনো কাম্য হতে পারে না বলেও জানান আওয়ামী লীগের এ নেতা।

ছাত্রলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সাধারণ সম্পাদক ও ওয়ারী থানা ছাত্রলীগ নেতার বহিস্কারের কথা উল্লেখ করে হানিফ বলেন, ‘ তারা যে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুলি ছুঁড়েছে তা তাদের বৈধ না অবৈধ অস্ত্র তা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দেখবে। তবে তাদের প্রকাশ্যে ফাঁকা গুলি করার অধিকার নেই।’

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ছাত্রলীগ তাদের সংগঠন থেকে বহিস্কার করেছে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ নষ্ঠ সময় পার করছে বলে করা বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের করা মন্তব্যের জবাবে হানিফ বলেন, দেশে নষ্ঠ রাজনীর শুরু করেছিলেন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান। তিনি রাজনীতিবিদদের জন্য রাজনীতিকে জটিল করে দিয়েছিলেন।

দেশে গণতন্ত্র নেই বিএনপির মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের পর রাতে কারফিউ জারী করে দেশ শাসন করেছেন। তাই তার দলের নেতাদের কাছে গণতন্ত্রের কথা শোভা পায় না।

তিনি বলেন, নির্বাচন বানচালের নামে বোমা মেরে মানুষ হত্যা, সরকার পতনের জন্য পেট্রল বোমা দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা ও জঙ্গীবাদ তৈরি করে বিদেশী নাগরিকদের হত্যা করা কখনো গণতন্ত্র হতে পারে না।

বিএনপির নেতাদের উদ্দেশ্য করে হানিফ আরো বলেন, আগে গণতন্ত্র কি তা জানুন, গণতান্ত্রিক আচার-আচারণ শিখুন তারপর গণতন্ত্র নিয়ে কথা বলুন।

দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণভাবে সংগঠিত হয়েছে উল্লেখ করে হানিফ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কূটনৈতিক সফলতার জন্য বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দীর্ঘদিনের অমিমাংশিত সীমান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়া ছিটমহল বাসীরা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে সমর্থ হয়েছে।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ছিটমহল বাসীরা ৬৮ বছর পর তারা তাদের ঠিকানা খোঁজে পেয়েছে এবং তারা তাদের রাজনৈতিক অধিকার ভোগ করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন নাহার লাইলী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদিকা ডা. রোকেয়া সুলতানা, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন ও আওয়ামী লীগ নেতা ইস্কান্দার মির্জা শামীম সহ আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।