ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:২০ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৬ই আগস্ট ২০১৮ ইং

ড. হাছান মাহমুদ

“অগ্নিসন্ত্রাস করলে ছারখার হবে বিএনপির রাজনীতি”

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আগের মতো আবারো যদি বিএনপি অগ্নি সন্ত্রাসের আন্দোলন করে তাহলে সেই আগুনে জ্বলে পুড়ে ছারখার হবে তাদের রাজনীতি।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ আয়োজিত ‌‘অগ্নি সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃস্টিকারী বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে’ মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি রাজপথে আন্দোলন এবং অবরোধের নামে দিনের পর দিন মানুষকে অবরুদ্ধ করে, ঘুমন্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে, বিশ্ব ইজতেমা ফেরত মুসল্লিদের ওপর পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে, বাইতুল মোকাররমে আগুন দিয়ে কোরআন শরীফ পুড়িয়ে দেয়, ঘুমন্ত বাস-ট্রাক ড্রাইভারকে পুড়িয়ে হত্যা করে, সিএনজি ট্যাক্সিতে আগুন দিয়ে ড্রাইভারকে টেনে হিচড়ে বের করে গায়ে পেট্রোল ঢেলে দিয়ে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যা করে।এভাবে আবারো যদি ২০১৩, ১৪, ১৫ সালের মতো বিএনপি অগ্নি সন্ত্রাসের আন্দোলন করে তাহলে সেই আগুনে জ্বলে পুড়ে ছারখার হবে তাদের রাজনীতি।

তিনি বলেন, বিএনপি কংগ্রেসের সই জাল করে নিজের পক্ষে বিবৃতি দেয় এবং তাদের যে নেতা সই জাল করেছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তার জেল হয়েছে। ‘বিএনপির নেতারা যেমন ভুয়া, এ দলের বুদ্ধিজীবিরাও ভুয়া। সম্প্রতি বিএনপির এক ভুয়া ব্যারিস্টার ধরা পড়েছে এবং তার আইনজীবী সনদ কেড়ে নেওয়া হয়েছে। তিনি জালিয়াতির মাধ্যমে বিভিন্ন টক-শোতে গিয়ে মিথ্যাচার করতেন। তাদের অনেকেই ভুয়া এবং জালিয়াত সুতরাং বিএনপি একটি জালিয়াত রাজনৈতিক দলে রুপান্তরিত হয়েছে।

বিএনপি আবারো দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের পুনরায় ক্ষমতার চার বছর পূর্তি উপলক্ষে বিএনপি আবারো দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে। রাজপথে আন্দোলনের নামে আগুন সন্ত্রাস করা হলে তা প্রতিহত করা হবে। আন্দোলনের নামে তারা আবারো বিশৃঙ্খলার রাজনীতি, অগ্নি সন্ত্রাসের রাজনীতি, পেট্রোল বোমার রাজনীতির পায়তারা করছে। ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে পেট্রোল বোমা বাহিনীকে রুখে দেয়া হবে।’

বিএনপির রাজনীতিতে পচন ধরেছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, যেখানে মাথা পচে যায় সেখানে পুরা অঙ্গই পচে যায়। যেখানে বেগম খালেদা জিয়া নিজেই কালো টাকা সাদা করেছে এবং তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ পরপর পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে সুতরাং এই পচন ধরা রাজনৈতিক দল কর্মসুচি দিবে দুর্নীতিবাজদের রক্ষা করার জন্য এটাই স্বাভাবিক। এবং তারা যদি আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে তাহলে বিএনপি পুরোপুরি সন্ত্রাসী সংগঠনে পরিণত হবে।

বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচির সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, এ বিক্ষোভ সরকারের বিরুদ্ধে নয়। আদালতের বিরুদ্ধে, আইনের বিরুদ্ধে দেশের আইন ও আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে এই বিক্ষোভ কর্মসুচির ডাক দেওয়া হয়েছে। তারা আইন মানেন না, আদালত মানেন না।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান দুর্জয়ের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, মাননীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমেলি, আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মুন্সি এবাদুল ইসলাম প্রমুখ।